হবিগঞ্জে ৩ হাজার অতিদরিদ্র পরিবারে ব্র্যাকের গরু বিতরণ

চলতি বছর হবিগঞ্জ জেলার ৫ উপজেলার ২ হাজার ৯৬৫টি অতিদরিদ্র পরিবারকে স্বাবলম্বী করতে বিনামূল্যে গরু বিতরণ করছে বেসরকারী উন্নয়ন সংস্থা ব্র্যাক। একই সাথে ওই সকল পরিবারকে গরু পালনের জন্য বিনা সুদে এবং ৩৬ কিস্তিতে পরিশোধের সুযোগ দিয়ে ১০ হাজার টাকা করে প্রদান করা হচ্ছে। পাশাপাশি বিনামূল্যে ভ্যাকসিন প্রদানসহ তাদেরকে প্রশিক্ষণও প্রদান করছে ব্র্যাক।

মঙ্গলবার (১২ জুন) দুপুরে হবিগঞ্জ সদর উপজেলার আউশাড়া গ্রামে অতিদরিদ্রদের মাঝে বিনামূল্যে গরু বিতরণ অনুষ্ঠানের উদ্বোধন করেন হবিগঞ্জের জেলা প্রশাসক মাহমুদুল কবীর মুরাদ।

আউশপাড়া সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় প্রাঙ্গণে হবিগঞ্জ সদর উপজেলা চেয়ারম্যান সৈয়দ আহমদুল হকের সভাপতিত্বে এবং ব্র্যাক জেলা প্রতিনিধি মো. ফিরুজ ভূইয়ার সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন জেলা প্রাণী সম্পাদ কর্মকর্তা ডা. মো. ইসহাক ভূঞা, সমাজসেবা অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক হাবিবুর রহমান, প্রেসক্লাবের সাবেক সাধারণ সম্পাদক এডভোকেট শাহ ফখরুজ্জামান, ব্র্যাক এর উর্ধ্বতন আঞ্চলিক ব্যবস্থাপক আতাহর রাফি আল সেলিম, আঞ্চলিক ব্যবস্থাপক ভৈরব চন্দ্র বিশ্বাস, হতদরিদ্র কর্মসূচির আঞ্চলিক ব্যবস্থাপক আনোয়ারুল ইসলাম এবং আউশপাড়া সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মনোজ কিশোর আচার্য্য।

অনুষ্ঠানে ৪৫টি পরিবারের মাঝে গরু, নগদ অর্থ এবং গরুর ঔষধ বিতরণ করা হয়। সদর উপজেলায় ৬৫০টি পরিবারের মাঝে গরু বিতরণ করা হবে।

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি জেলা প্রশাসক মাহমুদুল কবীর মুরাদ বলেন, দেশের দরিদ্র লোকজনের আর্থ-সামাজিক উন্নয়নের জন্য সরকারের পাশাপাশি বেসরকারী সংস্থাগুলো একযোগে কাজ করছে। এই প্রচেষ্টাকে সফল করতে যারা সুবিধাগ্রহণকারী তাদেরকে সচেতন হতে হবে। বাল্য বিয়ে এবং সামাজিক ব্যাধি থেকে নিজের পরিবারকে রক্ষা করতে হবে।

ব্র্যাক জেলা প্রতিনিধি মো. ফিরুজ ভূইয়া জানান, এ বছর হবিগঞ্জ জেলার সদর, নবীগঞ্জ, বাহুবল, মাধবপুর ও চুনারুঘাট উপজেলায় ২ হাজার ৯৬৫টি হতদরিদ্র পরিবারকে গরু প্রদান করা হবে। প্রত্যেক এলাকায় এই গরু পালন দেখাশোনার জন্য একজন করে ব্র্যাক কর্মী কাজ করবেন। দুই বছরের মাঝে কেউ গরু বিক্রি করতে পারবে না।

তিনি আরও জানান, সারা দেশে ২০০২ সাল থেকে এই প্রকল্প গ্রহণ করার পর এ পর্যন্ত ৪৫টি জেলায় ১৮ লাখ ১৯ হাজার ৭৪৯টি পরিবারকে এ ধরণের সহায়তা দিয়ে স্বাবলম্বী হতে সহায়তা করা হয়েছে। এর মাঝে হবিগঞ্জ জেলায় উপকৃত হয়েছে ১৪ হাজার ৩শ পরিবার।

তিনি বলেন, শুধু গরু প্রদান নয়। উপকারভোগীদেরকে প্রশিক্ষণ এবং সহায়তার মাধ্যমে নিজেদের জীবন মান উন্নয়নে পথ প্রদর্শন করে ব্র্যাক। ইতোপূর্বে যারা উপকারভোগী ছিলেন তাদের সবার অবস্থার উন্নতি হয়েছে বলে তিনি জানান।