সোবহানীঘাটে কামরান, কদমতলীতে আরিফ

সিলেট সিটি করপোরেশন নির্বাচনকে ঘিরে জমে উঠেছে প্রার্থীদের প্রচারণা। শুক্রবার (১৩ জুলাই) প্রার্থীরা মসজিদে মসজিদে জুমআর নামাজ শেষে মুসল্লিদের সাথে করমর্দন, কুশল বিনিময় দিয়ে নির্বাচনী প্রচারণা শুরু করেছেন। নগরীর বিভিন্ন ওয়ার্ড ঘুরে দেখা গেছে এমন চিত্র।

অন্যদিকে আওয়ামী লীগের মেয়র প্রার্থী বদর উদ্দিন কামরান জুমআর নামাজ আদায় করেছেন নগরীর সোবহানীঘাট শাহজালাল দারুস সুন্নাহ ইয়াকুবিয়া কামিল মাদ্রাসা মসজিদে। নামাজ আদায় শেষে স্থানীয় মুসল্লিদের সাথে কুশল বিনিময় করেন তিনি। এসময় তিনি বলেন, সিলেট সিটি করপোরেশনকে একটি ‘আধুনিক নগরী’ হিসেবে গড়ে তুলতে সিলেটের মানুষ আজ নৌকার পক্ষে ঐক্যবদ্ধ। যে দিকেই যাচ্ছি মানুষের ভালোবাসায় সিক্ত হচ্ছি। জনগণের ভালোবাসার প্রতিদান দিতে আমি প্রস্তুত রয়েছি। তিনি আরো বলেন, আধ্যাত্মিক শহর সিলেটের মানুষের সঙ্গে আমার আত্মার বন্ধন রয়েছে। দীর্ঘ দিন আমি নগরের মানুষের সেবক হিসেবে কাজ করেছি। একদিনের জন্য কখনো আমি সিলেটবাসীর সঙ্গে সর্ম্পক বিচ্ছিন্ন করেনি। যতদিন আল্লাহ রাব্বুল আলামীন আমাকে জীবিত রাখবেন, আমি আজীবন সিলেটের মানুষের সেবায় নিজেকে নিয়োজিত রাখবো।

নামাজের আগে বদরউদ্দিন কামরান সোবহানীঘাটের ব্যবসায়ীদের সঙ্গে গণসংযোগ করেন। এসময় তার সাথে ছিলেন- সিলেট জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও কামরানের নির্বাচনী পরিচালনা কমিটির আহবায়ক শফিকুর রহমান চৌধুরী, আল ইসলাহ কেন্দ্রীয় সভাপতি হযরত মাওলানা হুসাম উদ্দিন চৌধুরী, আল ইসলাহর অর্থ সম্পাদক মাওয়ানা আবু সালেক, শিক্ষা ও সাংস্কৃতিক বিষয়ক সম্পাদক মাওলানা আজির উদ্দিন পলাশ, মহানগর আওয়ামী লীগের শিক্ষা বিষয়ক সম্পাদক আজাদুর রহমান, আল ইসলাহ পাঠাগার সম্পাদক মাওলানা নজির আহমদ হেলাল, তালামীযের কেন্দ্রীয় সভাপতি রেদওয়ান আহমদ চৌধুরী, সাধারণ সম্পাদক আক্তার হোসেন জাহেদ, মহানগর আল ইসলাহর সাংগঠনিক সম্পাদক আতাউর রহমান, মাওলানা রফিকুল হোসেন খান, আওয়ামী লীগ নেতা হাজী মতিন, স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতা এডভোকেট ফখরুল ইসলাম, বদরুল হোসেন, মইনুল হক ইলিয়াছি, ছাত্রলীগ নেতা শাওন আহমদ, আবুল কালাম আব্দুল হাই প্রমুখ।

অন্যদিকে বিএনপি মনোনীত মেয়র প্রার্থী সদ্য সাবেক মেয়র আরিফুল হক চৌধুরী তার কর্মী সমর্থকদের নিয়ে দক্ষিণ সুরমার কদমতলী মসজিদে জুমআর নামাজ আদায় করেন। নামাজ শেষে মুসল্লিদের সাথে কুশল বিনিময় করে ধানের শীষে ভোট চান তিনি। এরপর স্থানীয় কর্মীদের সাথে নিয়ে দক্ষিণ সুরমার ২৬ ও ২৭ নং ওয়ার্ডের বিভিন্ন এলাকায় গণসংযোগ করেন বিএনপির এই মেয়র প্রার্থী।

এসময় আরিফুল হক বলেন, সিলেট সিটি নিয়ে সরকার ষড়যন্ত্রে মেতেছে। ষড়যন্ত্র করে লাভ নেই, সিলেটবাসী আমার পক্ষে। আমি কথায় নয়, উন্নয়নে বিশ্বাসী বলেই সবার কাছে নিজের কথাগুলো বলতে ও অন্যদের কথা শুনতে এসেছি। অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচনের মাধ্যমে নগর উন্নয়নে রায়ের প্রতিফলন ঘটাতে চাই বলেও আশাবাদ ব্যক্ত করেন তিনি। আরিফুল হক আরো বলেন, নির্বাচনী প্রচার-প্রচারণায় আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সহযোগিতা চাই। সুষ্ঠু নির্বাচন হলে বিজয় আমাদের সুনিশ্চিত। জনগণ আজ আমাদের পক্ষে রাস্তায় নেমে এসেছে।

এসময় তার সাথে ছিলেন, বিএনপি কেন্দ্রীয় সহ সাংগঠনিক সম্পাদক সাবেক এমপি কলিম উদ্দিন আহমদ মিলন, সিলেট জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক আলী আহমদ, মহানগর বিএনপির সহ সভাপতি সালেহ আহমদ খসরু, খেলাফত মজলিস সিলেট মহানগরের সহ সভাপতি আব্দুল হান্নান তাপাদার, জেলা যুবদলের যুগ্ম সম্পাদক আব্দুস শুক্কুর, বিএনপি নেতা এডভোকেট জাহেদ আহমদ, সাবেক ছাত্রদল নেতা শাকিল মোর্শেদ, বিএনপি নেতা আব্দুস সামাদ, আব্দুল খালিক, মর্তুজা মিয়া, আব্দুল করিম, ওয়াহিদ মিয়া, শামীম আহমদ, আলকাস মিয়া, মুরাদ মিয়া প্রমুখ।

এদিকে দলবল নিয়ে টিলাগড় কেন্দ্রীয় মসজিদে নামাজ আদায় শেষে টিলাগড়, শিবগঞ্জ এলাকায় গণসংযোগ করেন বদরুজ্জামান সেলিম। এসময় তার সাথেও ছিলেন বিপুল সংখ্যক নেতাকর্মী। অপর মেয়র প্রার্থী এহসানুল হক তাহের গণসংযোগ করেছেন নয়াসড়ক এলাকায়। নয়াসড়ক মসজিদে জুমআর নামাজ আদায়ের পর মুসল্লিদের কাছে দোয়া চান তিনি।