সিলেট আওয়ামী লীগের পক্ষ থেকে প্রধানমন্ত্রীকে অভিনন্দন

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা কর্তৃক সিলেটের উন্নয়ন পরিকল্পনা ঘোষণা করায় সিলেটবাসীর পক্ষ থেকে অভিনন্দন জানিয়েছেন সিলেট আওয়ামী লীগ নেতৃবৃন্দ। পৃথক পৃথক অভিনন্দন বার্তায় তারা এ ঘোষণাকে সিলেটের মানুষের স্বপ্ন বাস্তবায়নের মাইলফলক আখ্যায়িত করেন। আওয়ামী লীগ নেতৃবৃন্দ বলেন, প্রধানমন্ত্রীর এ ঘোষণায় সিলেটবাসীর দীর্ঘদিনের স্বপ্নপূরণ ও এ অঞ্চলের শিক্ষা, স্বাস্থ্য, শিল্প, পর্যটনসহ অন্যান্য ক্ষেত্রে যুগান্তকারী উন্নয়ন ও প্রসার ঘটবে। একই সাথে তাঁর সরকারের সাধিত ঐতিহাসিক উন্নয়ন কর্মকান্ডের জন্য কৃতজ্ঞচিত্তে অভিনন্দন জানান।

শনিবার (২১ জুলাই) ঢাকার সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে আওয়ামী লীগ আয়োজিত প্রধানমন্ত্রীকে গণসংবর্ধনা অনুষ্ঠানে সিলেটসহ দেশের বিভিন্ন এলাকার উন্নয়নে নিজের পরিকল্পনার কথা তুলে ধরেন শেখ হাসিনা। ঢাকা-সিলেট রুটে বুলেট ট্রেন চালু, সিলেট-ঢাকা মহাসড়ককে চারলেনে উন্নিতকরণ, সিলেট ওসমানী আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরকে আধুনিকায়নসহ সরকারের নানা পরিকল্পনার কথা জানান প্রধানমন্ত্রী।

তাঁর এই ঘোষণাকে স্বগত জানিয়ে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক এডভোকেট মিসবাহ উদ্দিন সিরাজ বলেন, প্রধানমন্ত্রীর এ ঘোষণাকে সিলেটবাসী আনন্দের সঙ্গে স্বাগত জানাচ্ছে। স্বপ্রণোদিত হয়ে ঢাকার জনসভায় প্রধানমন্ত্রীর এ ঘোষণা আবারো প্রমাণ হলো সিলেটের উন্নয়নের দায়িত্ব তিনি নিজের কাঁধে নিয়েছেন।
তিনি প্রধামন্ত্রী শেখ হাসিনাকে সিলেটবাসীর পক্ষ থেকে স্বশ্রদ্ধ অভিনন্দন ও কৃতজ্ঞতা জানিয়ে তাঁর সুস্বাস্থ্য ও দীর্ঘায়ূ কামনা করেন এবং তাঁর নেতৃত্বাধীন সরকারের সফলতা ও ধারাবাহিকতা কামনা করেন।

এছাড়া প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে আন্তরিক শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন জানিয়েছেন সিলেট জেলা ও মহানগর আওয়ামী লীগের নেতৃবৃন্দ।

জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান এডভোকেট লুৎফুর রহমান, মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি, সিলেট সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে মেয়র পদপ্রার্থী, সাবেক মেয়র বদর উদ্দিন আহমদ কামরান, জেলার সাধারণ সম্পাদক, সাবেক সংসদ সদস্য শফিকুর রহমান চৌধুরী, মহানগর সাধারণ সম্পাদক আসাদ উদ্দিন আহমদ যুক্ত অভিনন্দন বার্তায় বলেন, প্রধানমন্ত্রী কর্তৃক সিলেটের যোগাযোগ ব্যবস্থার উন্নয়নের ঐতিহাসিক ঘোষণা বৃহত্তর সিলেটের মানুষের স্বপ্ন বাস্তবায়নের মাইলফলক। প্রধানমন্ত্রীর এ ঘোষণা বাস্তবায়নের মাধ্যমে সিলেটবাসীর বিশেষ করে যোগাযোগ ব্যবস্থায় নতুন যুগে পদার্পন করবে। এর ফলে পূণ্যভূমি সিলেটের সার্বিক ক্ষেত্রে বৈপ্লবিক উন্নয়ন ও সমৃদ্ধি সাধন হবে বলে আশা প্রকাশ করেন নেতৃবৃন্দ। একই সাথে তারা শেখ হাসিনার প্রতি গভীর কৃতজ্ঞতা ও ধন্যবাদ জানিয়ে শেখ হাসিনার নেতৃত্বে দেশের চলমান উন্নয়ন, অগ্রগতি, শান্তি ও সমৃদ্ধির অগ্রযাত্রা আরো বেগবান হোক এই কামনা করেন।

অভিনন্দর জানিয়েছেন জাতিসংঘস্থ বাংলাদেশ স্থায়ী মিশনের সাবেক প্রতিনিধি ও রাষ্ট্রদূত, বঙ্গবন্ধু ফাউন্ডেশনের চেয়ারম্যান অধ্যাপক ড. একে আব্দুল মোমেন। এক অভিনন্দন বার্তায় ড. মোমেন বলেন, ঢাকার সমাবেশে সিলেটের উন্নয়নে প্রধানমন্ত্রীর ঘোষণায় সিলেটবাসী আনন্দিত ও গর্বিত। বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনা সিলেটের উন্নয়নে সকল সময়ই আন্তরিক। তাঁর সদিচ্ছা ও আন্তরিকতায় বিগত সাড়ে ৯ বছর ও এর আগে ৫ বছরে সিলেটে ঐতিহাসিক উন্নয়ন সাধিত হয়েছে। এরকম উন্নয়ন স্বাধীনতা পরবর্তী সময়ে কোন সরকার করতে পারেনি।

ড. মোমেন শেখ হাসিনার প্রতি গভীর কৃতজ্ঞতা ও অভিনন্দন জানিয়ে তাঁর নেতৃত্বাধীন সরকারের সফলতা কামনা করে বলেন, একমাত্র শেখ হাসিনার দ্বারাই সকল অসম্ভবকে জয় করা সম্ভব। প্রধানমন্ত্রীর এ ঘোষণায় সিলেটবাসীর দীর্ঘদিনের স্বপ্নপূরণ ও এ অঞ্চলের শিক্ষা, স্বাস্থ্য, শিল্প, পর্যটনসহ অন্যান্য ক্ষেত্রে যুগান্তকারী উন্নয়ন ও প্রসার ঘটবে বলে আশা ব্যক্ত করেন তিনি।