সিলেটে ৫২তম স্কুল-মাদ্রাসার শীতকালীন প্রতিযোগিতা সম্পন্ন

0
0

সিলেটের বিভাগীয় কমিশনার আবু আহমদ ছিদ্দীকী বলেছেন, শিক্ষার্থীদের শারীরিক ও মানসিক বিকাশের জন্য ক্রীড়া চর্চার গুরুত্ব অপরিসীম। সে কারণে লেখাপড়ার সাথে সাথে নিয়মিত ক্রীড়া চর্চায় শিক্ষার্থীদের উৎসাহিত করা প্রয়োজন।

তিনি বলেন, ‘আমরা শিশুদের জন্য একটা সুন্দর ভবিষ্যৎ গড়ে যেতে চাই। এজন্য মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দীর্ঘমেয়াদি পরিকল্পনাও করে দিয়েছেন। আজ আমরা উন্নয়নশীল দেশের মর্যাদা পেয়েছি। এই মর্যাদা ধরে রেখে আগামী দিনে আমরা বাংলাদেশকে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সোনার বাংলা হিসেবে গড়ে তুলবো। এটা আমাদের অঙ্গীকার।’

বৃহস্পতিবার (১ ফেব্রুয়ারি) বিকাল ৩টায় আবুল মাল ক্রীড়া কমপ্লেক্স মাঠে ৫২তম বাংলাদেশ জাতীয় স্কুল, মাদ্রাসা ও কারিগরি শিক্ষা শীতকালীন অ্যাথলেটিকস্ (ছাত্র-ছাত্রী) প্রতিযোগিতার-২০২৪ সিলেট উপ অঞ্চল এর পুরস্কার বিতরণ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি উপরোক্ত কথাগুলো বলেন।

এসময় শিক্ষার্থীদের ক্রীড়া চর্চায় অংশগ্রহণের জন্য সরকারের বিভিন্ন উদ্যোগের বিষয়ে তুলে ধরে তিনি সরকারের পাশাপাশি এ বিষয়ে শিক্ষক ও অভিভাবকদের আন্তরিক হওয়ার আহ্বান জানান।

মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা, সিলেট অঞ্চলের উপ পরিচালক আবু সাঈদ মো. আব্দুল ওয়াদুদ এর সভাপতিত্বে বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন সিলেট জেলা ক্রীড়া সংস্থার সাধারণ সম্পাদক মাহি উদ্দিন আহমদ সেলিম, এনডিসি (শিক্ষা ও আইসিটি) হোসাইন মো. আল জুনায়েদ।

অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন ও বক্তব্য রাখেন, সুনামগঞ্জ জেলার শিক্ষা অফিসার মো. জাহাঙ্গীর আলম, মৌলভীবাজার জেলার শিক্ষা অফিসার মো. ফজলুর রহমান, হবিগঞ্জ জেলার শিক্ষা অফিসার মোহাম্মদ রুহুল্লাহ।

অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন- ৫২তম বাংলাদেশ জাতীয় স্কুল, মাদ্রাসা ও কারিগরি শিক্ষা শীতকালীন অ্যাথরেটিকস্ (ছাত্র-ছাত্রী) প্রতিযোগিতার পরিচালনা উপ কমিটির সদস্য সিলেট সরকারি পাইলট স্কুলের প্রধান শিক্ষক মো. কবির খান, সিলেট সরকারি অগ্রগ্রামী স্কুলের প্রধান শিক্ষক হেপি বেগম, দি এইডেড হাই স্কুলের প্রধান শিক্ষক মো. শমসের আলী, সিলেট জেলা ক্রীড়া অফিসার নুর আহমদ।

ক্রীড়া প্রতিযোগিতা পরিচালনা করেন দি এইডেড হাই স্কুলের সিনিয়র শিক্ষক (ক্রীড়া) দীপাল কুমার সিংহ, মো. মাসুক উদ্দিন। অনুষ্ঠান পরিচালনা করেন সরকারি অগ্রগ্রামী বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের শিক্ষক কোহেলী রানী, সিলেট সরকারি পাইলট স্কুলের শিক্ষক ফৌজিয়া আক্তার প্রমুখ।