সাংবাদিক নির্যাতনের প্রতিবাদে হবিগঞ্জে মানববন্ধন

হবিগঞ্জে ‘মিথ্যা অভিযোগে’ ধরে এনে পুলিশের অমানবিক নির্যাতনের শিকার ইউকেভিত্তিক চ্যানেল এস এর সাংবাদিক সিরাজুল ইসলাম জীবনের উপর ‘মিথ্যা মামলা’ দায়েরের প্রতিবাদে ও দোষী পুলিশ সদস্যদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবীতে মাবনবন্ধন অনুষ্ঠিত হয়েছে।

বুধবার (০৫ জুন) সকাল সাড়ে ১১ টায় জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ের সামনে যশের আব্দা যুব কল্যাণ সংস্থা ও স্থানীয় এলাকাবাসীর ব্যনারে এ মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়।

মানববন্ধনে বক্তারা অবিলম্বের সংবাদিক জীবনের উপর মিথ্যা মামলা প্রত্যাহার ও দোষী পুলিশ সদস্যদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির শাস্তির দাবী জানান। অন্যথায় সাধারণ জনগণকে সাথে নিয়ে বৃহত্তর আন্দোলন গড়ে তুলা হবে বলে হুশিয়ারি প্রদান করা হয়। এ সময় যশের আব্দা যুব কল্যাণ সংস্থার নেতৃবৃন্দ ও স্থানীয় এলাকাবাসী বক্তব্য রাখেন।

এর আগে গত সোমবার হবিগঞ্জ প্রেসক্লাবে এক জরুরি সভায় জেলা পুলিশের ইফতার মাহফিলসহ সকল অনুষ্ঠান ও সংবাদ বর্জনের সিদ্ধান্ত নেয়া হয়। এ সময় ৪ দফা দাবি জানান সাংবাদিক নেতারা।

উল্লেখ্য, মিথ্যা অভিযোগে সাংবাদিক সিরাজুল ইসলাম জীবনকে ধরে এনে থানায় রাতভর বেধড়ক মারপিট করে পুলিশ। এমনকি তার শরীরের স্পর্শকতর স্থানে করা হয় মধ্যযুগীয় কায়দায় নির্যাতন। দেয়া হয় মোমবাতির ছ্যাকা। পরে তার বিরুদ্ধে পুলিশ এসল্ট এবং সরকারি কাজে বাধা প্রদানের অভিযোগে মামলা দিয়ে কারাগারে প্রেরণ করে পুলিশ। ওইদিন সন্ধ্যায় হবিগঞ্জ সদর থানার সামনে সড়ক অবরোধ করে বিক্ষোভ করে হবিগঞ্জে কর্মরত বিভিন্ন প্রিন্ট ও ইলেক্ট্রনিক মিডিয়ায় সংবাদিকরা।

এ ঘটনায় শনিবার (২ জুন) দুপুরে গঠন করা হয় তদন্ত কমিটি। সহকারী পুলিশ সুপার রবিউল ইসলামকে প্রধান করে এই কমিটি গঠন করেন জেলা পুলিশ সুপার বিধান ত্রিপুরা। এছাড়াও তদন্ত কমিটি ৩ কার্য দিবসের মধ্যে তদন্ত প্রতিবেদন দেয়ার নির্দেশ প্রদান করা হয়েছে। রোববার দুপুরে হবিগঞ্জের সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট তৌহিদুল ইসলাম এর আদালতে জামিন প্রার্থনা করলে আদালত শুণাণী শেষে জীবনকে জামিন প্রদান করেন।