সন্ত্রাসীদের হাত থেকে রেহাই পেতে আবেদন এক গৃহিণীর

সিলেট জেলা প্রেসক্লাবে সংবাদ সম্মেলন

নিজের খরিদা ভূমি রক্ষা করতে স্বামীর উপর মামলা হামলাসহ নানা ভাবে হয়রানী শিকার হচ্ছেন সিলেট সদর উপজেলার এক গৃহিনী। স্বামীর উপর থেকে সন্ত্রাসী বাহিনীর হিংস্রতা থেকে রেহাই ও পরিবার নিয়ে শান্তিতে বসবাস করতে প্রশাসনসহ সংশ্লিষ্ট সকলের সহযোগিতা কামনা করছেন ওই গৃহিনী।

বুধবার (২৮ ফেব্রুয়ারি) সিলেট জেলা প্রেসক্লাবে এক সংবাদ সম্মেলনে এমন অভিযোগ করেছেন উপজেলার টুলটিকর ইউনিয়নের মিরাপাড়ার ফজলু মিয়ার স্ত্রী গোলেস্তা বেগম।

সংবাদ সম্মেলনে গোলেস্তা বেগম জানান, মিরাপাড়া এলাকার বটেরতলা নামক স্থানে স্থানীয় মরহুম বাতির আলী উরফে বাবু মিয়ার ছেলে হোসেন আহমদ ও তার স্ত্রী নাজমিন আক্তার বেবির কাছ থেকে তিনি ও তাঁর স্বামীর খরিদা ৫ শতক ভূমি খরিদ করেন। জায়গা রেজিস্ট্রি ভূমিতে মাটি ভরাট করে নির্মাণ করেন সীমানা প্রাচীরসহ রাস্তার পাশে ২টি দোকানকোঠা। পরে নামজারি, বর্তমান জরিপে তসদিককৃত ফর্চা করা হয়। ভূমি উন্নয়ন করতে কেউ কোন প্রকার বাধা না দিলেও ২০১৬ সালের ২৯ জুন দিনে জায়গায় দৈনন্দিন কাজ শেষ করে বাড়িতে আসেন। রাতে তাদের ভূমির গেইটের সাইনবোর্ড মুঁছে কে বা কারা ‘মালিক মো. খসরু, মোবা : +৮৮০০৭১২০২৮’ লিখে রাখে। এ ব্যাপারে তিনি ৩০ জুন এসএমপি শাহপরাণ (র.) থানায় সাধারণ ডায়েরি করেন।

অতপর চলতি বছর গত ২২ ফেব্রুয়ারি সন্ধ্যায় টিলাগড় শাপলাবাগ এলাকার সাত্তার মিয়ার ছেলে রাজন আহমদ ৪-৫ জন তার ভূমির গেইটের তালা ভেঙ্গে নতুন একটি তালা ঝুলিয়ে দেয়। সন্ত্রাসী রাজন এসময় উচ্চস্বরে তার স্বামীকে যেকোন সময় খুন করবে বলে হুমকি দেয়। জীবনের নিরাপত্তা ও ভূমি বেদখল না হতে তিনি এসএমপি শাহপরান থানায় এ ব্যপারে অভিযোগ দায়ের করলে সন্ত্রাসীরা তার স্বামীকে নানাভাবে প্রাণনাশের হুমকি দেয়।

ভূমিখেকো চক্রের হুমকি-ধামকিতে সন্তানদের পড়ালেখার ক্ষতিসহ মানসিকভাবে বিপর্যস্ত উল্লেখ করে তিনি পরিবারের সদস্যদের জীবন রক্ষা ও ভূমির সুরক্ষা করতে সকলের সহযোগিতা কামনা করেন।