শ্রীলঙ্কায় বৌদ্ধ-মুসলিম দাঙ্গা : জরুরি অবস্থা জারি

বৌদ্ধ ও মুসলিমদের মধ্যে সাম্প্রদায়িক দাঙ্গা ছড়িয়ে পড়া বন্ধ করতে ১০ দিনের জন্য জরুরি অবস্থা জারি করেছে শ্রীলঙ্কা। দেশটির মধ্যাঞ্চলীয় জেলা ক্যান্ডিতে বৌদ্ধ ও মুসলিমদের মধ্যে সাম্প্রদায়িক দাঙ্গার পর এ পদক্ষেপ নিয়েছে দেশটির সরকার।

মঙ্গলবার দেশটির সরকারি এক মুখপাত্র বার্তা সংস্থা রয়টার্সকে এ খবর জানিয়েছেন।

কয়েকটি কট্টরপন্থি বৌদ্ধ গোষ্ঠী লোকজনকে জোর করে ইসলাম ধর্মে দিক্ষিত করার জন্য ও বৌদ্ধদের পুরাতাত্ত্বিক স্থানগুলো ভাংচুর করার জন্য মুসলিমদের দায়ী করে আসছিল। এতে গত বছরজুড়েই এ দুটি সম্প্রদায়ের মধ্যে উত্তেজনা ক্রমাগত বেড়ে চলছিল।

বৌদ্ধ সংখ্যাগরিষ্ঠ মিয়ানমার থেকে শ্রীলঙ্কায় আসা মুসলিম রোহিঙ্গা শরণার্থীদের বিষয়েও প্রতিবাদে সরব হয়েছে দেশটির কয়েকটি বৌদ্ধ জাতীয়তাবাদী গোষ্ঠী।

এ পরিস্থিতিতে মন্ত্রীসভার এক বিশেষ বৈঠকে ‘দেশের অন্যান্য অংশে সাম্প্রদায়িক দাঙ্গা ছড়িয়ে পড়া ঠেকাতে’ ১০ দিনের জন্য জরুরি অবস্থা জারির সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে বলে রয়টার্সকে জানিয়েছেন মুখপাত্র দয়াসিরি জয়াসেকারা।

তিনি বলেন, “ফেইসবুকের মাধ্যমে যারা দাঙ্গার প্ররোচনা দিচ্ছে তাদের বিরুদ্ধে কঠোর পদক্ষেপ নেওয়ার সিদ্ধান্তও হয়েছে।”

সোমবার ক্যান্ডিতে একদল উচ্ছৃঙ্খল জনতা মুসলিম মালিকানাধীন একটি দোকানে অগ্নিসংযোগ করার পর সংখ্যাগরিষ্ঠ সিংহলী বৌদ্ধদের সঙ্গে সংখ্যালঘু মুসলিমদের দাঙ্গা শুরু হয়। দাঙ্গা থামাতে ক্যান্ডিতে সান্ধ্য আইন জারি করে সেখানে সেনা ও অভিজাত পুলিশ বাহিনী পাঠায় সরকার।