রাঙামাটিতে ইউপিডিএফ’র ৫ নেতা ব্রাশফায়ারে নিহত

উপজেলা চেয়ারম্যান শক্তিমান চাকমা হত্যাকাণ্ডের রেশ কাটতে না কাটতে রাঙামাটিতে ফের রাজনৈতিককর্মী হত্যার ঘটনা ঘটেছে। এবার জেলার নানিয়ারচরের বেতছড়িতে সন্ত্রাসী হামলায় পাহাড়ি সংগঠন ইউনাইটেড পিপপলস ডেমোক্রেটিক ফ্রন্টের (ইউপিডিএফ- গণতান্ত্রিক) প্রধান তপনজ্যোতি চাকমাসহ পাঁচ সদস্য নিহত হয়েছেন।

নিহত অন্য চারজন হলেন মহালছড়ির সেতু লাল চাকমা (৪০), কনক চাকমা (৩৮) ও সুজন চাকমা (৩০) এবং খাগড়াছড়ির পানছড়ি নিবাসী মাইক্রোবাসচালক বাঙালি সজীব (৩৪)।

এ হামলায় আহত হয়েছেন আরও ৯ জন। এর মধ্যে দিগন্ত চাকমা (৩০), অর্চিন চাকমা (২৮), অর্জুন চাকমা (৩০) ও মিহির চাকমার (২৮) অবস্থা আশঙ্কাজনক হওয়ায় তাদের চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। এ ছাড়া জীবন্ত চাকমা (৩০), শান্তিরঞ্জন চাকমা (৩৪) ও প্রীতি কুমার চাকমা (৩৮) খাগড়াছড়ি সদর হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন।

শুক্রবার দুপুর ১২ টার দিকে নানিয়ারচরের বেতছড়ি এলাকায় এ হামলার ঘটনা ঘটে বলে জানিয়েছেন নানিয়ারচরের ওসি আবদুল লতিফ। এছাড়া রাঙামাটির অতিরিক্ত পুলিশ সুপার জাহাঙ্গীর আলমও পাঁচ জন নিহতের তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, হতাহতরা একটি মাইক্রোবাসে করে আগের দিন গুলিতে নিহত নানিয়ারচরের উপজেলা চেয়ারম্যান শক্তিান চাকমার শেষকৃত্যে যোগ দিতে যাচ্ছিলেন।

মাইক্রোবাসটি রাঙামাটি-খাগড়াছড়ি সীমান্তের কাছে বেতছড়ি এলাকায় পৌঁছলে সেখান আগে থেকে ওঁৎ পেতে থাকা দুর্বৃত্তরা হামলা চালায়।

হামলাকারী প্রথমে মাইক্রোবাসের বাঙালি চালক সজীবকে লক্ষ্য করে গুলি ছোড়ে। চালক গুলিবিদ্ধ হলে গাড়িটি উল্টে যায়। এর পর দুর্বৃত্তরা আরোহীদের লক্ষ্য করে ব্রাশফায়ার করে পালিয়ে যায়। এতে ঘটনাস্থলেই ইউপিডিএফের (গণতান্ত্রিক) প্রধান তপনজ্যোতি চাকমা ওরফে বর্মা, কনক চাকমা ও সুজন চাকমা নিহত হন। তাদের লাশ রাঙামাটি সদর হাসপাতালে রয়েছে বলে জানিয়েছে পুলিশ।

অন্যদিকে গুলিবিদ্ধ অবস্থায় বাকিদের খাগড়াছড়ি সদর হাসপাতালে নেয়া হলে সেখানে চালক সজীব ও সেতু লাল চাকমা মারা যান। এ হাসপাতালেই তাদের লাশ রাখা হয়েছে।

নানিয়ারচরের ওসি আবদুল লতিফ জানান, হামলার খবর পেয়ে পুলিশ ও সেনাবাহিনীর সদস্যরা ঘটনাস্থলে পৌঁছে হতাহতদের উদ্ধার করে হাসপাতালে নিয়ে যান।

তিনি জানান, নিহতদের মধ্যে তিনজন ঘটনাস্থলে এবং গুলিবিদ্ধ অবস্থায় চালক ও আরও একজন খাগড়াছড়ি জেলা হাসপাতালে মারা গেছেন।

মাত্র এক দিন আগে রাঙামাটির নানিয়ারচর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও পার্বত্য চট্টগ্রাম জনসংহতি সমিতির (এমএন লারমা) সহ-সভাপতি অ্যাডভোকেট শক্তিমান চাকমাকে প্রকাশ্যে দিনের আলোতে গুলি করে হত্যা করা হয়। সকাল সাড়ে ১০টার দিকে শক্তিমান চাকমা তার সরকারি বাসভবন থেকে স্থানীয় বাজারে যান। বাজার থেকে মোটরসাইকেলে করে উপজেলা পরিষদের সামনে আসেন। মোটরসাইকেল থেকে নামতেই গুলি করা হয় তাকে।

ঘটনাস্থলেই মারা যান অ্যাডভোকেট শক্তিমান চাকমা। পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে শক্তিমান চাকমার লাশ উদ্ধার করে। এ ঘটনায় তার সহকারী রুপম চাকমা (৩৫) আহত হয়েছেন। এই হত্যাকাণ্ডের জন্য ইউপিডিএফ এর শীর্ষ নেতাদের দায়ী করেছে পার্বত্য চট্টগ্রাম জনসংহতি সমিতি (এমএন লারমা)।