‘যাদের প্রাণ দিয়ে বিশ্বাস করতাম, তারাই বিশ্বাসে ছুরি বসিয়েছে’

এস এম জাকির হোসাইন

শনিবার (১৪ এপ্রিল) ছিলো বাংলা নতুন বছরের প্রথম দিন, পহেলা বৈশাখ। সেদিন বিকেলে নিজের টাইমলাইনে একটি পোস্ট দিয়েছেন কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক এস এম জাকির হোসাইন। পহেলা বৈশাখে প্রধানমন্ত্রীকে ফুল দিয়ে শুভেচ্ছা জানানোর ছবিসহ দেয়া সেই পোস্টে জাকির লিখেছেন নিজের হতাশার কিছু কথা, রাজনৈতিক কর্মী হিসেবে তাঁর লেখায় ঝরেছে আক্ষেপ। ছাত্রলীগ সাধারণ সম্পাদকের সেই পোস্ট নিচে তুলে ধরা হলো:

‘গতকাল সন্ধ্যা থেকে হঠাৎ দেখি ফেইসবুকের টাইমলাইন পরিবর্তন হয়ে গেছে, বিকাল থেকেই মোবাইলে এসএমএস আসা শুরু হলো নববর্ষের শুভেচ্ছা জানিয়ে। দিন যায় মাস আসে, মাস পেরিয়ে আসে বছর। সময় খরস্রোতা নদীর মতো, আটকে রাখা যায় না। অনন্তকাল ধরে বয়ে চলেছে, বয়ে যাবে। আমরা বাস করি শুধু সময়ের গর্ভে। অনেকে বলে সময় বদলায়, আসলে সময় বদলায় না। সময় সময়ের মতই চলে, বদলে যাই কেবল আমরা। আমরা এত কুৎসিতভাবে বদলাতে পারি যে অনেক প্রাণীই আমাদের দেখে এখন লজ্জা পায়। কাউকে আমরা যেমন মাথার উপর তুলে রাখতে পা‌রি, তেম‌নি আবার সময়ের আগেই তাকে পায়ের নিচে চেপে ধরতে দ্বিধা করি না। আমরা বড় অদ্ভুত। নিজের স্বার্থে হেন কিছু নাই আমরা করতে পারি না!

এই কয়টা দিন খুব কাছ থেকে দেখেছি, যে মানুষগুলোকে সবচেয়ে বেশি ভালোবাসতাম তারাই সবচেয়ে বেশি কষ্ট দিয়েছে। যাদের প্রাণ দিয়ে বিশ্বাস করতাম তারাই বিশ্বাসে ছুরি বসিয়েছে। যারা এতদিন প্রশংসায় পঞ্চমুখ হতো, স্বার্থের প্রয়োজনে মুখ ফিরিয়ে নিয়েছে। সময় স্বার্থবাদি না। মানুষ স্বার্থপর। স্বার্থের জন্য আমরা বিশ্বাসঘাতক হই, রূপ বদলিয়ে বহুরূপী হই।

যখন রাস্তায় নামি, পিচঢালা রাস্তাটাকে নদী মনে হয়। চলতে গিয়ে বুঝতে পারি সে নদীর ঢেউগুলি বুকে লাগছে। তখন নিজেকে আবিষ্কার করি স্রোতের প্রতিকূলে চলা একা একজন মানুষ হিসেবে। খুবই একা। কঠিন বিপদে যারা ত্রাতা হিসেবে আসার কথা, সেও দাঁড়ায় বড় বাধার কারণ হয়ে, পাহাড়সম ঢেউ হয়ে। তখন নিরব কান্না দেখানোর মানুষও থাকে না। মাঝে মাঝে মনে হয়, আ‌মরা প্রস্তুর যুগে বাস করছি, আমাদের দেহমন পাথরে গড়া। আর না হলে তো মানুষ বুঝতো, আমরাও মানুষ আমা‌দেরও মন আছে, আর সবার মত সুখ-দুঃখ অনুভূতি আছে।’

তিনি লিখেন, ‘রাজনীতির কারণে অনেকেই বাঁকা চোখে দেখে। কেউ কেউ আমাদের দুধের মধ্যেও কাঁটা খোঁজে। আর অপরাধ না করেও চিরঅপরাধীর কাঠগড়ায় দাঁড়ানো তো আমাদের ভাগ্য লিখন। আপনারা যখন আমাদের কর্মের পোস্টমর্টেম করতে ছুরি চালান, তখন আমাদের কষ্ট হয়, যন্ত্রণা হয়। আমরাও তো আপনাদের মত মানুষ। আমাদের ভুল ত্রুটি থাকতে পারে। তবে কিছুই কি ভালো নেই? আমাদের ঝুড়ি কি একেবা‌রেই শূন্য? আসলে আপনাদের ভালো লাগা-মন্দ লাগাগুলো অন্যকে বলতে পারেন। আমাদের নিরব অশ্রুপাত দেখার কেউ নেই। আবার আমরা পাথরে গড়া। আমরা বদলাতেও পারি না।’

জাকির আরও লিখেছেন, ‘নানা সময় নানা কাজের মধ্য দিয়ে যেতে হয়। কখনো মন ভালো থাকে, কখনো আকাশ ভাঙা মন খারাপ থাকে। নতুন দিনের মধ্যে দিয়ে নতুন বছর শুরু হতে যাচ্ছে। হোক। আমাদের সময় বদলাবে না। নাভিশ্বাস ওঠে যাওয়ার সময়ও আমাদের কষ্ট চেপে হেসে যেতে হবে। সবার ভুল-ত্রুটি ক্ষমা করা হবে, আমাদের না। যে সময়ের মধ্যে দিয়ে এসেছি, অনেক কিছু শিখেছি। সবাই ভালো থাকবেন। অনেকেই বলছে নববর্ষের শুভেচ্ছা জানিয়ে কিছু লিখবেন না? কিন্তু শুভেচ্ছা জানাতে পারলাম না বলে দুঃখিত। শুভেচ্ছা দিয়ে কি হবে? আমরা তো ছাত্রলীগ করি, আমরা তো পাথরে গড়া, আমা‌দের আবেগ নেই।’

(লেখা ও ছবি এস এম জাকির হোসাইনের ফেসবুক টাইমলাইন থেকে নেয়া)