মেসির বিশ্বকাপ অভিষেকে আর্জেন্টিনার ২৬ পাসের গোল

ফিরে দেখা : বিশ্বকাপের রেকর্ড

ইতিহাস গড়া গোলের পর ক্যাম্বিয়াসোর উল্লাস

জার্মানির গেলসেনকির্শেন মাঠে সেদিন কেবল বঞ্চিত ছিলেন আর্জেন্টিনার গোলরক্ষক আবদানজিয়িরি আর ডিফেন্ডার নিকোলাস বারদিসো। ইতিহাস গড়া সেই গোলের অংশ হতে পারেননি এই দুজন। তারা বাদে বাকি নয় ফুটবলারের পা ছুঁয়ে হয়েছিল এক ঐতিহাসিক গোল। ২৬তম পাস থেকে বলটা জালে জড়িয়েছিলেন এস্তেবান ক্যাম্বিয়াসো।

রাশিয়া বিশ্বকাপের আর বাকি মাত্র ২৬ দিন। বাকি থাকা সেই ২৬ দিনের মুহুর্তে ‘২৬’ সংখ্যাটা তাই ক্যাম্বিয়াসোকে মনে করিয়ে দিতে পারে সেই ইতিহাস। ২০০৬ বিশ্বকাপে এই মিডফিল্ডার বল জালে জড়িয়েছিলেন ২৬টি পাসের পর। এখন পর্যন্ত বিশ্বকাপে এটাই সবচেয়ে বেশি পাসের সমন্বয়ে দেওয়া গোলের রেকর্ড। তাই বলা যায়, ক্যাম্বিয়াসো নয় বরং গোলটা দিয়েছিল পুরো আর্জেন্টিনা দল মিলেই।

জার্মানি বিশ্বকাপে সেদিন গ্রুপ পর্বে নিজেদের দ্বিতীয় ম্যাচে প্রথমবারের মতো বিশ্বকাপে খেলতে আসা সার্বিয়া ও মন্টেনিগ্রোর মুখোমুখি হয়েছিল আর্জেন্টিনা। এই ম্যাচ দিয়েই বিশ্বকাপে অভিষেক হয়েছিল বর্তমানে বিশ্বের অন্যতম সেরা ফুটবলার লিওনেল মেসির। নিজের আর প্রতিপক্ষের অভিষেক বিশ্বকাপেই সার্বিয়াকে ৬-০ গোলে বিধ্বস্ত করেছিলেন মেসিরা।

তবে, মেসির শুরুর ম্যাচে গোল বন্যায় সার্বিয়াকে ভাসালেও ইতিহাসের পাতায় লেখা থাকবে আর্জেন্টাইনদের দেওয়া দ্বিতীয় গোলটা। পাস দেওয়ার শুরুটা হয়েছিল হাভিয়ের মাসচেরানো থেকে। এরপর পুরো ৫২ সেকেন্ড নিয়ে আর্জেন্টাইনরা চালিয়েছে পাসের মিছিল।

বল ঘুরতে ঘুরতে এসে পড়েছিল রিকুয়েলমের পায়ে। সেখান থেকে বল পেয়ে ক্যাম্বিয়াসো দিয়েছিলেন ক্রেসপোকে, ক্রেসপো আবার ব্যাক-হিলে সুন্দর জায়গা বানিয়ে দিয়ে ফিরিয়ে দিয়েছিলেন ক্যাম্বিয়াসোকে। সাবেক এই রিয়াল মাদ্রিদ মিডফিল্ডার ভুল করেননি লক্ষ্যভেদে। তাঁর দেয়া গোলের সঙ্গে সঙ্গে গড়া হয়ে গিয়েছিল ইতিহাসও।