মেসিই পাচ্ছেন গোল্ডেন শ্যু?

ফাইল ছবি

লিভারপুলের তারকা মোহামেদ সালাহকে পিছনে ফেলে ইউরোপীয়ান ফুটবলে এবারের মৌসুমে সর্বোচ্চ গোলের পুরস্কার গোল্ডেন শ্যু পাবার ক্ষেত্রে অনেকটাই এগিয়ে গেছেন বার্সেলোনার সুপারস্টার লিওনেল মেসি।

মাসখানেক আগেও মনে হচ্ছিলো এই পুরস্কারটা পেতে পারেন সালাহ। কিন্তু মার্চের শেষে প্রিমিয়ার লিগে মাত্র তিন গোল করে পিছিয়ে গেছেন লিভারপুলের এই মিশরীয় তারকা। এই সময়ে লা লিগায় আটটি গোল করে এগিয়ে গেছেন মেসি।

ঘরোয়া লিগে সর্বমোট ৩৪ গোল করে মেসি সালাহ’র থেকে তিন গোল এগিয়ে রয়েছেন। সালাহ’র হাতে রয়েছে আর মাত্র একটি ম্যাচ। রোববার ঘরের মাঠ অ্যানফিল্ডে লিগে এই মৌসুমের শেষ প্রিমিয়ার লিগ ম্যাচে ঘরের মাঠে লিভারপুল খেলবে ব্রাইটনের বিপক্ষে।

অন্যদিকে লা লিগা শেষ করতে বার্সেলোনার হাতে এখনো দুটি ম্যাচ বাকি আছে। সোমবার লেভান্তের বিপক্ষে এ্যাওয়ে ম্যাচের এক সপ্তাহ পরে শেষ ম্যাচে ক্যাম্প ন্যুতে রিয়াল সোসিয়েদাদকে আতিথ্য দিবে কাতালান জায়ান্টরা।

গোল্ডেন শ্যু টেবিলে মূলত গোলের সংখ্যার থেকে পয়েন্টই গুরুত্বপূর্ণ। ইউরোপের শীর্ষ পাঁচ লিগে গোল করলে দুই পয়েন্ট যোগ হয়। এবারের মৌসুমে বেনফিকার হয়ে লিগে জোনাস ৩৩টি গোল করেছেন। কিন্তু পর্তুগীজ লীগে গোল করলে ঐ খেলোয়াড়ের নামের পাশে দেড় পয়েন্ট যোগ হয়। যে কারণে তালিকায় জোনাসের অবস্থান নবম। ২৯টি করে গোল করে ৫৮ পয়েন্ট নিয়ে তৃতীয় স্থানে যৌথভাবে আছেন বায়ার্ন মিউনিখের রবার্ট লিওভানডোস্কি ও ল্যাজিওর সিরো ইমোবিলে। প্যারিস সেইন্ট-জার্মেইর এডিনসন কাভানি, ইন্টার মিলানের মাওরো ইকার্দি ও টটেনহ্যাম হটস্পারের হ্যারি কেন করেছেন ২৮টি করে গোল।

এবার ৩৪ গোল করে ৬৮ পয়েন্ট নিয়ে শীর্ষে রয়েছেন তিনিই। ৩১ গোল করে ৬২ পয়েন্ট নিয়ে দ্বিতীয় স্থানে রয়েছেন মোহাম্মদ সালাহ। মেসি এর আগে এই পুরস্কারটি জিতেছেন চারবার। রিয়াল মাদ্রিদের ক্রিস্টিয়ানো রোনালদোও চারবার গোল্ডেন শ্যু পেয়েছেন, যার মধ্যে ২০০৭-০৮ মৌসুমে প্রথমবার তিনি ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডের হয়ে এই পুরস্কার জয় করেছিলেন। এবারের মৌসুমে রোনালদো ২৫ গোল করে অষ্টম স্থানে আছেন।

২০০৮ সাল থেকে ১২জন বিজয়ীর মধ্যে ১১জনই ছিলেন লা লিগার। মাঝে ২০১৩-১৪ মৌসুমে ইংলিশ প্রিমিয়ার লিগে লিভারপুলের হয়ে লুইস সুয়ারেজ এই পুরস্কার অর্জন করেছিলেন।