মাহিদ হত্যার দায় স্বীকার করলো আতিক

আটক আতিক ও রিপন

মাহিদ হত্যাকাণ্ডের সাথে জড়িত থাকার অভিযোগে আটক মির্জা আতিক নামের একজন আদালতে স্বীকারোক্তিমুলক জবানবন্দি দিয়েছে। বুধবার (২৮ মার্চ) বিকেলে সিলেট মহানগর হাকিম-১ মামুনুর রশীদ সিদ্দিকীর আদালতে হাজির করা হলে সেখানে ১৬৪ ধারায় জবানবন্দি দেয় আতিক। এতে সে মাহিদকে হত্যার দায় স্বীকার করে।

এ ঘটনায় গ্রেপ্তার হওয়া তায়েফ মো. রিপনকে বুধবার বিকেলে একই আদালতের মাধ্যমে তিনদিনের রিমাণ্ডে নেওয়া হয়েছে।

এ ব্যাপারে সিলেট মহানগর পুলিশের সহকারী কমিশনার (প্রসিকিউশন) অমূল্য চৌধুরী বলেন, আদালতে দেওয়া জবানবন্দিতে হত্যার দায় স্বীকার করেছে মির্জা আতিক। আতিক জানায়, দুটি মোটরসাইকেলে করে তারা চারজন ছিনতাইয়ে অংশ নেয়। ছিনতাইয়ের উদ্দেশ্যেই তারা ছুরিকাঘাত করে বলে আতিক আদালতকে জানিয়েছে।

এই মামলায় তায়েফ মো. রিপন নামের আরেকজনকে আদালতে হাজির করে ৭ দিনের রিমাণ্ড চাইলে আদালত তিনদিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন।

এর আগে মঙ্গলবার রাতে (২৭ মার্চ) দক্ষিণ সুরমার ভার্থখলা কবরস্থানের পাশ থেকে আতিক ও রিপনকে গ্রেপ্তার করা হয়।

দক্ষিণ সুরমা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) খায়রুল ফজল জানান, এরা পেশাদার ছিনতাইকারী। এদের বিরুদ্ধে ছিনতাইয়ের আরো কয়েকটি মামলা রয়েছে। এরপর মির্জা আতিকের স্বীকারোক্তি মোতাবেক হামলার সময় ব্যবহৃত ছুরিও উদ্ধার করে পুলিশ। এ ঘটনায় জড়িত অপর দু’জনকেও গ্রেফতারের  চেষ্ঠা চলছে বলে জানান তিনি।

প্রসঙ্গত, রোববার (২৫ মার্চ) দিবাগত রাত ১টার দিকে একদল দুর্বৃত্ত মাহিদ আল সালামকে ছুরিকাঘাত করে পালিয়ে যায়। তারা নিয়ে যায় মাহিদের সঙ্গে থাকা ব্যাগ ও ল্যাপটপ। তাৎক্ষনিকভাবে আহত মাহিদকে সিলেট এমএজি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হলে সেখানে তিনি মারা যান।

মাহিদ শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (শাবিপ্রবি) অর্থনীতি বিভাগের শিক্ষার্থী ছিলেন। ঘটনার সময় তিনি সিলেট থেকে ঢাকায় যাওয়ার জন্য কদমতলী বাস টার্মিনালের উদ্দেশে যাচ্ছিলেন।