মাদক নির্মূল চাই, বিনা বিচারে হত্যা নয়

সিলেটে গণজাগরণ মঞ্চের বিক্ষোভ সমাবেশে বক্তারা

ক্রসফায়ার ও বন্দুকযুদ্ধের নামে বিচার বহির্ভূত হত্যাকাণ্ড বন্ধের দাবিতে সিলেটে মিছিল ও সমাবেশ করেছে গণজাগরণ মঞ্চ, সিলেট।

বৃহস্পতিবার (৭ জুন) বিকালে সিলেট কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার প্রাঙ্গণ থেকে শুরু হয়ে মিছিলটি জিন্দাবাজার ঘুরে আবার শহীদ মিনার প্রাঙ্গণে এসে এক সমাবেশে মিলিত হয়।

প্রতিবাদ সমাবেশে বক্তারা বলেন, কয়েক বছর ধরে দেশ মাদকে ছেয়ে গেছে। অনেক ক্ষেত্রে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সহযোগিতায় একেবারে প্রত্যন্ত গ্রামে ছড়িয়ে পড়েছে ভয়ঙ্কর সব মাদক। অথচ এখন মাদক নির্মূলের নামে বিনা বিচারে হত্যাকাণ্ডে মেতেছে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী। কোনো স্বাধীন-সভ্য দেশে এমন নির্বিচারে হত্যাকাণ্ড চলতে পারে না।

বক্তারা বলেন, আমরা মাদকবিরোধী অভিযানকে স্বাগত জানাই। রাজনৈতিক পরিচয়ের উর্ধ্বে উঠে সকল মাদক ব্যবসায়ী-মাদক সম্রাটরা গ্রেপ্তার হোক। তাদের বিচারের মুখোমুখি করা হোক। চাই দেশ থেকে মাদক নির্মূল হোক। কিন্তু বন্দুকযুদ্ধ-ক্রসফায়ারের নামে কাউকে বিনা বিচারে হত্যার অধিকার আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর নেই।

বক্তারা আরও বলেন, প্রতিটি হত্যাকাণ্ডের পর পুলিশ-র‌্যাব ক্রসফায়ারের একঘেয়ে বিবরণ দিলেও একরাম হত্যার পর ফাঁস হওয়া অডিও রেকর্ড প্রমাণ করছে, কিভাবে পরিকল্পিতভাবে তাদের হত্যা করা হচ্ছে। অবিলম্বে এসব হত্যাকাণ্ড বন্ধ করতে হবে।

তারা আরও বলেন, সরকার একদিকে নির্বিচারে হত্যা চালাচ্ছে, অন্যদিকে এর বিরুদ্ধে নূন্যতম ভিন্নমত-প্রতিবাদকেও সহ্য করছে না। বুধবার শাহবাগে এমন একটি প্রতিবাদ সমাবেশে হামলা চালায় র‌্যাব। তুলে নিয়ে যায় গণজাগরণ মঞ্চের মুখপাত্র ইমরান এইচ সরকারকে। তাকে ছাড়াতে গিয়ে র‌্যাবের মারধরে আহত হন ছাত্র ইউনিয়নের কয়েকজন নেতা।

বক্তারা ওই হামলা ও ইমরানকে আটকের নিন্দা জানিয়ে এর সাথে জড়িতদের শাস্তি দাবি করেন।

সিলেট গণজাগরণ মঞ্চের মুখপাত্র দেবাশীষ দেবুর সঞ্চালনায় সমাবেশে বক্তব্য রাখেন সংক্ষুব্ধ নাগরিক আন্দোলনের সমন্বয়ক আব্দুল করিম কীম, ইমজা সভাপতি আশরাফুল কবীর, সাংবাদিক মঈনউদ্দিন মনজু, কবি আবিদ ফায়সাল, আইনজীবী রনেন সরকার রনি, গণজাগরণ মঞ্জের সংগঠক রাজীব রাসেল, দেবজ্যোতি দাস, অরূপ বাউল, উজ্জ্বল চক্রবর্তী, মাসুম আহমদ, রূপন রূপু, বিপ্লব বণিক, অপু মজুমদার, তাহমিনা আহমেদ, মেকদাদ মেঘ, ছাত্র ইউনিয়নের সাংগঠনিক সম্পাদক নাবিল এইচ প্রমুখ।