মধ্যরাতে শেষ হচ্ছে প্রচারণা

সিলেট, রাজশাহী ও বরিশাল সিটি করপোরেশন নির্বাচনে আজ শেষ প্রচারণা চালাবেন মেয়র ও কাউন্সিলর প্রার্থীরা। শনিবার (২৮ জুলাই) রাত ১২টা পর্যন্ত চালানো যাবে সব ধরনের প্রচার-প্রচারণা।

আগের দিন শুক্রবার তিন সিটিতেই শোডাউন করেছেন মেয়র প্রার্থীরা। কাউন্সিলর প্রার্থীরাও নিজ নিজ ওয়ার্ডে শোডাউন ও নির্বাচনী জনসমাগমে ছিলেন ব্যস্ত। আজও (শনিবার) বড় ধরনের শোডাউনের মাধ্যমে মেয়র ও কাউন্সিল প্রার্থীরা শেষদিনের প্রচারণায় ব্যস্ত থাকতে দেখা গেছে। আজ মেয়র প্রার্থীদের সাথে নিজ নিজ দলের কেন্দ্রীয় নেতারাও প্রচারণায় অংশ নিয়েছেন।

শেষ মুহূর্তে এসে মাইকিং করে প্রচারণা বেড়ে গেছে লক্ষণীয়ভাবে। নগরীগুলোর বিভিন্ন জায়গায় লাগানো পোস্টার বৃষ্টিতে ক্ষতিগ্রস্ত ও ছিড়ে যাওয়ায় পলিথিনে মোড়ানো নতুন পোস্টার লাগিয়েছেন অনেক প্রার্থী। গতকাল শুক্রবার ছুটির দিনেও তিন নগরীতে দিনভর দেখা দিয়েছে যানজট।

এদিকে, তিন সিটি এলাকায় শুক্রবার মধ্যরাত থেকে বহিরাগতদের অবস্থান নিষিদ্ধ করা হয়েছে। নির্বাচন কমিশন থেকে ইতিমধ্যে এ সংক্রান্ত পরিপত্র জারি করা হয়েছে। এতে বলা হয়- নির্বাচনী এলাকার বাসিন্দা বা ভোটার নন এমন ব্যক্তিদের শুক্রবার মধ্যরাতের মধ্যে নির্বাচনী এলাকা ছাড়তে হবে।

শনিবার মধ্যরাত থেকে সিটি করপোরেশন এলাকায় মোটরসাইকেল চলাচলে নিষেধাজ্ঞা আরোপ করা হয়েছে। আর আগামীকাল রোববার মধ্যরাত থেকে নিষেধাজ্ঞা কার্যকর হবে অন্যান্য যানবাহন চলাচলেও। একই সময় থেকে বৈধ অস্ত্র বহন ও প্রদর্শনেও দেয়া হয়েছে নিষেধাজ্ঞা। ভোট গ্রহণের পরদিন ৩১ জুলাই পর্যন্ত এসব নিষেধাজ্ঞা কার্যকর থাকবে।

এদিকে, সিটি নির্বাচন সুষ্ঠু করা ও যেকোনো পরিস্থিতি মোকাবেলায় শনিবার সকাল থেকে সিলেট, রাজশাহী ও বরিশাল সিটিতে বিজিবি মোতায়েন করা হয়েছে। সিলেট সিটি করপোরেশন নির্বাচনে আইন শৃঙ্খলা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে ১৪ প্লাটুন বিজিবি মোতায়েন করা হয়েছে। সেই সাথে অতিরিক্ত র‌্যাব ও পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। শনিবার সকাল ৬টা থেকে বিজিবি সদস্যরা নগরীতে টহল দিচ্ছেন বলে জানিয়েছেন বিজিবি সেক্টর কমান্ডার কর্নেল নাসির উদ্দিন। সেই সাথে নির্বাচনের দিন স্ট্রাইকিং ফোর্স হিসেবে আরো ৪ প্লাটুন বিজিবি মোতায়েন করা হবে বলেও জানান তিনি।

প্রসঙ্গত, আগামী ৩০ জুলাই সিলেট, রাজশাহী ও বরিশাল সিটি করপোরেশনে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। এদিন সকাল ৮ টা থেকে বিকাল ৪ টা পর্যন্ত একটানা ভোটগ্রহণ চলবে।