ভারতে ধর্ষণের পর কিশোরীকে পুড়িয়ে হত্যা

ধর্ষণ করা হয় ১৪ বছরের এক কিশোরীকে। পঞ্চায়েতে অভিযোগ যাওয়ার পর নামমাত্র ‘শাস্তি’ দেওয়া হয় ধর্ষককে। ক্ষুব্ধ ধর্ষক পরের রাতে ওই কিশোরীর বাড়িতে গিয়ে তাকে বেঁধে আগুনে পুড়িয়ে হত্যা করে।

বর্বরোচিত এই ঘটনাটি ঘটেছে শুক্রবার (৪ মে) ভারতের ঝাড়খণ্ড রাজ্যের নকশাল বাহিনী অধ্যুষিত ছত্র জেলায়।

ওই কিশোরীর পরিবার জানায়, একটি বিয়ে বাড়ি থেকে বের হওয়ার পর ওই কিশোরীকে তুলে নিয়ে যায় সেই অভিযুক্ত যুবকসহ ৪ জন। এরপর একটি নির্জন স্থানে নিয়ে গিয়ে তাকে ধর্ষণ করে ওই অভিযুক্ত যুবক। এ নিয়ে ওই কিশোরীর বাবা গ্রামের মাতবর এবং অন্যদের কাছে অভিযোগ দিলে সালিশ বসে। সেখানে ধর্ষককে ১০০ বার কান ধরে ওঠবস করতে বলা হয় এবং ৫০ হাজার রুপি জরিমানা করা হয়। শাস্তি পাওয়ার পর সেই ধর্ষক পরের রাতেই কিশোরীর বাড়িতে যায়। সেখানে গিয়ে কিশোরীর মা-বাবাকে বেধড়ক পিটুনির পর ঘর থেকে বের করে দেয়। এরপর ওই কিশোরীকে ঘরে বেঁধে শরীরে আগুন ধরিয়ে দেয়। এতে পুড়ে মারা যায় ধর্ষিত মেয়েটি।

স্থানীয় পুলিশ জানায়, আগুন দিয়েই ঘটনাস্থল থেকে পালিয়ে যায় অভিযুক্ত। তাকে ও তার সহযোগীদের পাকড়াও করতে অভিযান চলছে।