বড়লেখায় মাকে মারধর করে স্বাস্থ্য সহকারী জেলে

বড়লেখায় বাড়িতে বন্ধু ও বান্ধবী নিয়ে অশ্লীল কার্যকলাপ ও ফুর্তি আমোদে বাঁধা দেয়ায় মাকে পিটিয়ে আহত করলেন স্বাস্থ্য সহকারী ময়নুল ইসলাম মাছুম। গুরুতর আহত অবস্থায় মা সুফিয়া বেগমকে সিলেট এমএজি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে স্থানান্তর করা হয়েছে। এ ঘটনায় বড়ভাই ফখরুল ইসলামের মামলায় মাছুমের ঠাই হলো শ্রীঘরে।

থানা পুলিশ ও এলাকাবাসী সুত্রে জানা গেছে, উপজেলার সুজানগর ইউনিয়নের আমবাড়ি গ্রামের মৃত তৈয়বুর রহমানের ছেলে স্বাস্থ্য সহকারী (মাস্টাররোলে) ময়নুল ইসলাম মাছুম গত বৃহস্পতিবার রাতে বাড়িতে কয়েকজন বন্ধু ও বান্ধবী ডেকে আমোদ-ফুর্তি করছিলেন। তাদের গান বাজনা, হৈ হুল্লোড়, আর অট্ট হাসি-ঠাট্টায় মা ও বড়ভাই চরম বিরক্ত হন। এক পর্যায়ে বৃদ্ধ মা সুফিয়া বেগম বিছানা থেকে উঠে পাশের ঘরে গিয়ে ছেলেকে এসব বন্ধ করতে বলেন। এতে ছেলে ময়নুল ইসলাম মাছুম ও কয়েকজন বন্ধু উত্তেজিত হয়ে মাকে মারধর করেন।

বড়ভাই ফখরুল ইসলাম বিষয়টি পুলিশকে জানালে রাত ২টার দিকে থানার এসআই জাহাঙ্গীর আলম ঘটনাস্থলে পৌঁছে ময়নুল ইসলাম মাছুমকে আটক করে থানায় নিয়ে যান। এসময় অন্যান্যরা পালিয়ে যায়।

এদিকে আহত সুফিয়া বেগমকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে অবস্থা গুরুতর হওয়ায় চিকিৎসকরা তাকে সিলেট এমএজি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে স্থানান্তর করেন।

বড়লেখা থানার ওসি (তদন্ত) দেবদুলাল ধর জানান, এ ঘটনায় ফখরুল ইসলাম ৩ জনের বিরুদ্ধে থানায় মামলা করেছেন। মায়ের অবস্থা গুরুতর হওয়ায় তাকে সিলেট ওসমানীতে প্রেরণ করা হয়েছে। গ্রেপ্তারকৃত ময়নুল ইসলাম মাছুমকে আদালতের মাধ্যমে জেল হাজতে প্রেরণ করা হয়েছে।