বিয়ে করতে যাওয়ার পথেই মারা গেলেন বর আনসার

ওসমানীনগরে সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত ৬ জনই দোয়ারাবাজারের

শুক্রবার (২৮ জুলাই) ছিল বিয়ের তারিখ। সেই সাথে সকল প্রস্তুতিও সম্পন্ন। কনের বাড়ি নোয়াখালী জেলায়। সুনামগঞ্জের দোয়ারাবাজার থেকে নোয়াখালীর দূরত্ব বিশাল হওয়ায় বৃহস্পতিবার (২৬ জুলাই) সকালে কনের বাড়ির উদ্দেশ্যে রওয়ানা হন বর আনসার আলী। সাথে ছিলেন তার বড় ভাই আমীর আলী, মামাতো ভাই আনফর আলী, বোন জামাই মিরাস আলীসহ আরো কয়েকজন।

দোয়ারাবাজার থেকে সিলেট হয়ে নোয়াখালি যাওয়ার পথে বৃহস্পতিবার বিকালে ওসমানীনগর অতিক্রম করার সময় ট্রাক ও যাত্রীবাহী মাইক্রোবাসের মুখোমুখি সংঘর্ষে বর আনসার আলী, তার বড় ভাই আমীর আলী, মামাতো ভাই আনফর আলী, বোন জামাই মিরাস আলী এবং তাদের সাথে থাকা পারভিন আকতার ও তার শিশু কন্যা ঝুমা বেগমসহ মোট ৬ জন নির্মমভাবে মারা যান। নিহত পারভিন আকতার ও তার শিশু কন্যা ঝুমা বেগম তাদেরই নিকটাত্মীয় বলে জানা গেছে।

বৃহস্পতিবার (২৬ জুলাই) বিকেল সাড়ে ৩টার দিকে সিলেট-ঢাকা মহাসড়কের গোয়ালাবাজার ইউনিয়নের ইলাশপুরের বটেরতল এলাকায় দুর্ঘটনাটি ঘটে।

দুর্ঘটনার পর প্রাথমিকভাবে তাদের নাম-পরিচয় পাওয়া না গেলেও দোয়ারাবাজারের নরসিংপুর ইউপি সদস্য আব্দুল হান্নানের বরাত দিয়ে সিলেট ভয়েসের দোয়ারাবাজার প্রতিনিধি আশিক মিয়া নিহত ৬ জনের বাড়িই দোয়ারাবাজার উপজেলার মুকিরগাঁও গ্রামে বলে নিশ্চিত করেছেন।  তিনি জানান- মধ্যে বর আনসার আলী ও আমীর আলী গ্রামের জমির আলীর ছেলে এবং নিহত মিরাস আলীর বাড়ি স্থানীয় নোয়ারাই ইউনিয়নের মির্জাপুর গ্রামে।

এছাড়া নিহত আনফর আলী, পারভিন আকতার ও তার শিশু কন্যা ঝুমা বেগম সবাই সম্পর্কে আত্মীয়-স্বজন হলেও তাদের বিস্তারিত পরিচয় জানা যায়নি।

প্রত্যক্ষদর্শী ও ফায়ার সার্ভিস সূত্রে জানা যায়, সিলেটগামী দ্রুতগতির টুকরো কাপড় বোঝাই একটি ট্রাক (ঢাকা মেট্রো-ট-১১-২৪৩৩) বিপরীতমুখি যাত্রীবাহী মাইক্রোবাসকে (ঢাকা মেট্রো-চ-১৪-০২৮৬) চাপা দিয়ে রাস্তার ওপর উল্টে যায়। এতে মাইক্রোবাসটি দুমড়েমুচড়ে গেলে ঘটনাস্থলে মাইক্রোযাত্রী ১ নারী ও ১ শিশুসহ ২ যুবক ঘটনাস্থলে মারা যায়। তাজপুর ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা গুরুতর অবস্থায় আরো ৫ মাইক্রোযাত্রীকে উদ্ধার করে সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে গেলে আরো দুইজনের মৃত্যু হয়।

এদিকে মহাসড়কের ওপর ট্রাকটি উল্টে যাওয়ায় ঘটনার পর থেকে যান চলাচলে বন্ধ হয়ে যায়। খবর পেয়ে ওসমানীনগর সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. সাইফুল ইসলাম, ওসি আলী মাহমুদ, ওসমানীনগর উপজেরা পরিষদের চেয়ারম্যান ময়নুল হক চৌধুরী, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আনিছুর রহমান স্থানীয় ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আতাউর রহমান ঘটনাস্থলে পৌঁছে যান চলাচল স্বাভাবিক করার চেষ্টা চালান। এছাড়াও ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন ফায়ার সার্ভিস সিলেটের বিভাগীয় উপ-পরিচালক তণয় বিশ্বাস।

দুর্ঘটনার প্রত্যক্ষদর্শী স্থানীয় ব্যবসায়ী সুন্দর মিয়া জানান, একটি গাড়িকে সাইট দিতে গিয়ে মাইক্রোবাসটি রাস্তার পাশে চলে আসে এবং পরবর্তী সময়ে রাস্তার উঠতে গেলেই দ্রতগতির ট্রাকটি চাপা দিয়ে উল্টে যায়।

ওসমানীনগর সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. সাইফুল ইসলাম বলেন, দুর্ঘটনার খবর পাওয়া মাত্র আমরা ঘটনাস্থলে পৌঁছে হতাহতদের উদ্ধার করি এবং যান চলাচলে স্বাভাবিক চেষ্টা চালাই।

ফায়ার সার্ভিস সিলেটের বিভাগীয় উপ-পরিচালক তণয় বিশ্বাস বলেন, আশংকাজনক অবস্থায় আহতদের ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে গেলে আরো ১ জনের মৃত্যু হয় বলে তিনি জানান।