ফেঞ্চুগঞ্জে আ’লীগ নেতার বলাৎকারের শিকার কিশোর

অভিযুক্ত আওয়ামী লীগ নেতা নজরুল ইসলাম মিফতার

ফেঞ্চুগঞ্জে বয়োজ্যেষ্ঠ এক আওয়ামী লীগ নেতার দ্বারা নির্মম বলাৎকারের শিকার হয়েছে ১৫ বছরের এক কিশোর।

ঘটনার শিকার কিশোরের পারিবারিক সূত্র জানায়, ১৫ বছরের ওই কিশোর সিএনজি অটোরিকশা ফেঞ্চুগঞ্জ মাইজগাও শাখায় নতুন সদস্য হতে টাকা নিয়ে গেলে অভিযুক্ত ফেঞ্চুগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগ সহ-সভাপতি ও ওই সিএনজি স্টেশন শাখার সভাপতি নজরুল ইসলাম মিফতার (মিফতার মেম্বার) তাকে মোটর সাইকেলে করে বাড়িতে নিয়ে গিয়ে তার উপর পাশবিক নির্যাতন চালায়।

ঘটনায় আহত হয়ে ওই কিশোর তার বড় ভাইকে (অটোরিকশা চালক) ফোন করে বিষয়টি জানালে তারা তাকে উদ্ধার করে ফেঞ্চুগঞ্জ থানায় নিয়ে আসেন। এ সময় থানায় দায়িত্বরতরা কিশোরের শারীরিক অবস্থা খারাপ দেখে আগে মেডিকেল নিয়ে যেতে পরামর্শ দিলে স্বজনরা তাকে ফেঞ্চুগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যান। এখানে কর্তব্যরত চিকিৎসক ড. দিদার আলম ভিকটিম কে সিলেট ওসমানী হাসপাতালের ওয়ান স্টপ ক্রাইসিসে রেফার্ড করেন।

এ অবস্থায় নির্যাতিত কিশোরকে ওসমানীতে না নিয়ে বাড়ি ফিরিয়ে নিয়ে আসার জন্য হুমকি দেন মিফতার মেম্বার। এ হুমকিতে ভয়ে তারা বাড়ি ফিরে যান। এরপর কিশোরের শারীরিক অবস্থা খারাপ হতে থাকলে কোন উপায় না দেখে স্বজনরা তাকে সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যান।

এ ব্যাপারে বলাৎকারে অভিযুক্ত নজরুল ইসলাম মিফতার বলেন, ‘এসব মিথ্যা, আমি ঘটনা জানি না! আমার লোক তাদের পিছনে আছে! টাকা দিয়ে যাতে সার্টিফিকেট না আনতে পারে!’

কিন্তু আপনি না জানলে পিছনে লোক লাগালেন কি ভাবে; এমন প্রশ্নে তিনি বলেন- ‘আপনি তো প্রতিপক্ষের মত জেরা করছেন!