ফিফার বিশ্বসেরা একাদশে নেই মেসি-রোনালদো

প্রতিবারের মতো এবারও বিশ্বকাপে খেলোয়াড়দের পারফরম্যান্সের ওপর ভিত্তি করে সেরা দল ঘোষণা করেছে ফুটবলের সর্বোচ্চ নিয়ন্ত্রক সংস্থা ফিফা, যার নাম ‘ওয়ার্ল্ড কাপ টিম অব দ্যা টুর্নামেন্ট’। তবে এই একাদশ নিয়ে ইতোমধ্যে তৈরি হয়েছে বিতর্ক।

বিতর্কের কারণ, একাদশে জায়গা পাননি টুর্নামেন্টের সর্বোচ্চ গোলদাতা ইংলিশ তারকা হ্যারি কেন। ছয়টি গোল করে এবার গোল্ডেন বুট জিতেছেন এই ইংলিশ অধিনায়ক। অন্যদিকে, এবার সেরা গোলরক্ষক হিসেবে গোল্ডেন গ্লাভস জয়ী বেলজিয়ামের থিবো কোর্তোয়াও জায়গা পাননি একাদশে। ফিফার একাদশে গোলরক্ষক হিসেবে জায়গা পেয়েছেন চ্যাম্পিয়ন দল ফ্রান্সের গোলরক্ষক হুগো লরিস।

একাদশে জায়গা পাননি বিশ্বের সবচেয়ে বড় দুই তারকা খেলোয়াড় আর্জেন্টিনার লিওনেল মেসি ও পর্তুগালের ক্রিশ্চিয়ানো রোনালদো। অথচ এ দু’জনের কাছেই রয়েছে বিশ্ব সেরা ফুটবলারের খেতাব। যে খেতাব গত ১০ বছর ধরে নিজেদের অধিকারে রেখেছেন এ দু’জন। অবশ্য সদ্য সমাপ্ত বিশ্বকাপে রোনালদো চার ম্যাচে হ্যাটট্রিকসহ ৪টি গোল পেলেও সমান ম্যাচে মাত্র একটি গোল করতে পেরেছিলেন লিওনেল মেসি। আর দুজনের দলই বিদায় নিয়েছিল দ্বিতীয় রাউন্ডে হেরে। তবে তাদের হটিয়ে বিশ্বকাপে ‘সমালোচিত’ নেইমারের স্থান পাওয়াটাও বিস্ময়কর মনে করছেন কেউ কেউ।

ফিফার একাদশে স্থান পাওয়া সবোর্চ্চ চারজন বিশ্বকাপ জয়ী ফ্রান্স দলের খেলোয়াড়। দুইজন করে রয়েছেন ব্রাজিল, ক্রোয়েশিয়া ও ইংল্যান্ডের। অবশিষ্ট একজন বেলজিয়ামের। টুর্নামেন্টে অংশ নেয়া ৩২টি দলের খেলোয়াড়দের মধ্যে মাত্র ৫টি দলের খেলোয়াড়রা ‘ওয়ার্ল্ড কাপ টিম’-এ শীর্ষ ১১ জনের তালিকায় স্থান পেয়েছেন। টিমের ফরমেশন সাজানো হয়েছে ৪-২-৩-১।

ফিফার টিমের খেলোয়াড়ের তালিকা
লরিস (গোলরক্ষ-ফ্রান্স), ট্রিপার (রাইট ব্যাক-ইংল্যান্ড), ভারানে (সেন্টার ব্যাক-ফ্রান্স), লভরেন (সেন্টার ব্যাক-ক্রোয়েশিয়া), ইয়ং (ফুল ব্যাক-ইংল্যান্ড), পওলিনহো (মিডফিল্ডার-ব্রাজিল), মদ্রিচ (মিডফিল্ডার-ক্রোয়েশিয়া), নেইমার (ফরোয়ার্ড-ব্রাজিল), এমবাপ্পে (ফরোয়ার্ড-ফ্রান্স), গ্রিজম্যান (ফরোয়ার্ড-ফ্রান্স) ও হ্যাজার্ড (অ্যাটাকিং মিডফিল্ডার- বেলজিয়াম)।