‘পাসপোর্ট পাবেন না তারেক রহমান’

পাসপোর্ট অধিদপ্তরের মহাপরিচালক (ডিজি) মেজর জেনারেল মো. মাসুদ রেজওয়ান

পাসপোর্ট অধিদপ্তর কর্তৃপক্ষ (ডিআইপি) জানিয়েছে, যুক্তরাজ্যের লন্ডনে রাজনৈতিক আশ্রয়ে থাকা বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান মেয়াদ শেষে বাংলাদেশের পাসপোর্ট জমা দিয়ে দিলেও দূতাবাসের মাধ্যমে ট্রাভেল পাস (ভ্রমণ ভিসা) নিয়ে দেশে ফিরতে পারবেন।

বৃহস্পতিবার (২৬ এপ্রিল) এ তথ্য জানান পাসপোর্ট অধিদপ্তরের মহাপরিচালক (ডিজি) মেজর জেনারেল মো. মাসুদ রেজওয়ান। রাজধানীর আগারগাঁওয়ে প্রতিষ্ঠানটির এক সংবাদ সম্মেলনে এ তথ্য জানান তিনি।

বর্তমানে তারেক রহমান বাংলাদেশি পাসপোর্টবিহীন অবস্থায় বিদেশে অবস্থান করছেন- এমন তথ্য জানিয়ে তিনি বলেন, “তারেক রহমান ২০০৮ সালে যখন বিদেশ যান, তখন হাতে লেখা পাসপোর্টের মেয়াদ ছিল ২০১০ সাল পর্যন্ত। এরপর তিনি ২০১৪ সাল পর্যন্ত পাসপোর্টের মেয়াদ বৃদ্ধি করেন। তার পরে আর মেয়াদ বৃদ্ধি করেননি। এরপর তারেক রহমান যুক্তরাজ্যের এম্বেসিতে পাসপোর্ট জমা দেন। তারপর সেটা আমাদের হাতে আসে। সুতরাং তিনি এখন বাংলাদেশি পাসপোর্টবিহীন অবস্থায় বিদেশে অবস্থান করছেন।”

এর আগে বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছিলেন, “বিশ্বের বিভিন্ন বরেণ্য রাজনীতিকের মতো তাঁর দলের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান যুক্তরাজ্যে রাজনৈতিক আশ্রয় চেয়েছেন এবং তিনি সেটা পেয়েছেন। পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী তারেক রহমানের পাসপোর্ট ও নাগরিকত্বের বিষয়ে যে চিঠি দিয়েছেন, এটি অত্যন্ত রহস্যজনক। কারণ এ চিঠিতে ১৩টি মারাত্মক ভুল আছে, যা ব্রিটিশরা কোনোভাবেই করতে পারেন না।”

তাঁর এই বক্তব্যের প্রেক্ষিতে আজ পাসপোর্ট অধিদপ্তরের মহাপরিচালক বলেন, “এখন আবেদন করলেও বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান পাসপোর্ট পাবেন না। তবে তিনি চাইলে ট্রাভেল পাস নিয়ে দেশে ফিরতে পারবেন।”

পাসপোর্ট না পাওয়ার বিষয়ের ব্যাখ্যা দিয়ে মেজর জেনারেল মো. মাসুদ রেজওয়ান বলেন, “পাসপোর্ট আদেশ ১৯৭৩ অনুযায়ী, যেকোনো আবেদনকারী দরখাস্ত করার তারিখ থেকে তার আগের পাঁচ বছরের মধ্য যদি সে দুই বছরের জন্য যদি দণ্ডিত হয়ে থাকেন, তাহলে আমরা তাঁকে পাসপোর্ট দেবো না।”

তিনি আরও বলেন, “কোনো আবেদনকারী যদি বাংলাদেশে কোনো ফৌজদারি আদালতে বিচারাধীন মামলার ক্ষেত্রে হাজিরা দিচ্ছেন না কিংবা হাজিরা না দেওয়ার চেষ্টা করেন অথবা আদলত থেকে বাংলাদেশের বাইরে যাওয়ার ক্ষেত্রে তাঁর ওপর ইনজাংশন জারি করা হয়; তাহলেও আমরা তাঁকে পাসপোর্ট দিতে পারব না। তবে কোনো আসামি যদি সাজা পাওয়ার আগেই পাসপোর্ট নিয়ে নেন, তাহলে তাঁর পাসপোর্ট ফেরত নেওয়া হয় না। কিন্তু তাঁকে দেশের বাইরে যেতেও দেওয়া হবে না।”

পাসপোর্টের সঙ্গে দেশের নাগরিকত্বের কোনো সম্পর্ক নেই বলেও জানান পাসপোর্ট অধিদপ্তরের এ কর্মকর্তা।