পশ্চিমবঙ্গের নাম বদলে হবে ‘বাংলা’

নাম পরিবর্তন হতে চলেছে পশ্চিমবঙ্গের। এখন কেন্দ্রের অনুমতি পেলেই পশ্চিমবঙ্গের নাম বদলে হয়ে যাবে ‘বাংলা’।

বৃহস্পতিবার (২৬ জুলাই) বিধানসভায় সর্বসম্মতিক্রমে রাজ্যের নাম পরিবর্তনের প্রস্তাব পাস হয়। শাসক তৃণমূল ছাড়াও বাম, কংগ্রেস এবং বিজেপির বিধায়করা এই প্রস্তাবের পক্ষেই ভোট দিয়েছেন।

পশ্চিমবঙ্গ রাজ্যের নাম ‘বাংলা’ করা নিয়ে প্রস্তাব পেশ করেন পরিষদীয় মন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায়। তাতে সমর্থন জানান বাম, কংগ্রেস এবং বিজেপির বিধায়করা।

মুখ্যমন্ত্রী জানান, এই প্রস্তাব কেন্দ্রের কাছে পাঠানো হবে। বাংলা বিশ্ব বাংলায় পরিণত হোক সেই কামনা করি।

বাংলা, হিন্দি ও ইংরেজি তিন ভাষাতেই ‘বাংলা’ নামে লেখা হবে রাজ্যের নাম। এর আগেও তৃণমূল সরকার রাজ্যের নাম পরিবর্তনের উদ্যোগ নিয়েছিল। নাম পরিবর্তনের পেছনে সরকারের যুক্তি ছিল, ইংরেজিতে রাজ্যের নাম লেখা হয় ওয়েস্ট বেঙ্গল। সেই হিসাবে কেন্দ্রীয় সরকারের বা অন্যান্য গুরুত্বপূর্ণ কোনও অনুষ্ঠানে বক্তব্য পেশের সময় রাজ্যের প্রতিনিধিদের অনেক পরে বলার সুযোগ দেয়া হয়। ইংরেজি বর্ণমালা অনুযায়ী সেটা ঠিক হয়। তখন অনুষ্ঠানে উপস্থিত সদস্যদের বক্তব্য শোনার ধৈর্য আর থাকে না। এছাড়া নামের সঙ্গে রাজ্যের জাতীয় স্বার্থের বিষয়ও জড়িয়ে থাকে।

তখন রাজ্যের নাম পরিবর্তন করে বাংলায় ‘বঙ্গ’ ও ইংরেজিতে ‘বেঙ্গল’ করার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়। বিধানসভায় পাশের পর সেই প্রস্তাব কেন্দ্রের কাছে পাঠানো হয়। কিন্তু কেন্দ্র সেই প্রস্তাব ফিরিয়ে দেয়। কেন্দ্রের যুক্তি ছিল, একই রাজ্যের দুটি বা তিনটি নাম হতে পারে না। সেই কথা মনে করিয়ে মুখ্যমন্ত্রী এদিন বিধানসভায় বলেন, আমাদের ইচ্ছা থাকলেও উপায় নেই। একটা ভাষাতেই রাজ্যের নাম করতে হবে। সেই কারণে আমরা একটা নাম করেছি৷ ভাষা অনুযায়ী বাংলা নাম রাখছি।

নাম পরিবর্তন নিয়ে অনেক বিরোধীতার মধ্যেও পড়তে হয়েছে রাজ্য সরকারকে। বিরোধীদের দাবি ছিল, নামের সঙ্গে ঐতিহ্য অনেক ইতিহাস জড়িয়ে থাকে। নাম পরিবর্তনের অর্থ তা মুছে যাওয়া। কিন্তু রাজ্য সরকারের যুক্তি ছিল, রাজ্যের স্বার্থেই করা হবে নাম পরিবর্তন।