নেশার টাকার জন্য দুই মাসের শিশু সন্তানকে হত্যা

হবিগঞ্জের লাখাই উপজেলার মানপুর গ্রামে নেশার টাকা না দেওয়ায় মাদকসেবী এক পাষণ্ড পিতার বিরুদ্ধে তার দুই মাসের শিশু সন্তানকে হত্যার অভিযোগ উঠেছে। একই সাথে স্ত্রী ও তার আরেক কন্যা সন্তানকেও পিটিয়ে হাসপাতালে পাঠিয়েছে সে।

মঙ্গলবার (১০ জুলাই) দুপুরে এ ঘটনাটি ঘটে। এ ঘটনায় পাষণ্ড পিতা ফাইজুলকে আটক করেছে পুলিশ।

জানা যায়, প্রায় ৮ বছর আগে একই গ্রামের রইছ আলীর কন্যা ফুলজাহানকে বিয়ে দেয়া হয় সামছু মিয়ার পুত্র ফাইজুলের সাথে। বিয়ের পর একে একে তাদের কোল জুড়ে ৩ সন্তান জন্মগ্রহন করে। এদিকে ফাইজুল মাদকাসক্ত ও এলাকার চিহ্নিত জুয়াড়ী। প্রায়ই টাকার জন্য ফুলজাহানের উপর নির্যাতন চালাতো সে। ফুলজাহান শত নির্যাতন সহ্য করে সন্তানদের দিকে তাকিয়ে মাদকসেবী স্বামীর সংসার করতে থাকে।

আহত ফুলজাহান

মঙ্গলবার দুপুরে সে মাদক সেবনের টাকা জন্য ফুলজাহানের উপর নির্যাতন চালায়। এসময় সে টাকা দিতে অপরাগতা প্রকাশ করলে সে তাকে মারপিট করে। এক পর্যায়ে ফাইজুল তার দুই মাসের শিশু সন্তান ইকরা মনিকে ঘুম থেকে তুলে আছাড় মারে। সন্তানকে বাঁচানোর জন্য ফুলজাহান এগিয়ে আসলে দা দিয়ে কুপিয়ে তাকেও আহত করা হয়।

শুধু তাই নয়, এছাড়াও ফাইজুল তার অপর কন্যা সন্তান স্থানীয় প্রাইমারী স্কুলের ২য় শ্রেণীর ছাত্রী মারিয়া আক্তারকেও পিটিয়ে আহত করে। পরে স্থানীয় লোকজন তাদেরকে উদ্ধার করে হাসপাতালে নিয়ে এসে ভর্তি করায়। বিকেলে চিকিৎসাধীন অবস্থায় দায়িত্বরত চিকিৎসকরা ইকরা মনিকে মৃত ঘোষণা করেন।

খবর পেয়ে সদর থানার এসআই জহির আহমেদ লাশের ছুরতহাল রিপোর্ট তৈরী করে সদর হাসপাতালের মর্গে প্রেরণ করেন। এ ঘটনায় লাখাই থানা পুলিশ অভিযান চালিয়ে ফাইজুলকে আটক করে। এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত তাকে জিজ্ঞাসাবাদ চলছে।