দায়িত্ব হারালেন ফখরুল, নতুন দায়িত্বে নজরুল

ছবি : সংগ্রহ

২০ দলীয় জোটের সমন্বয়কের দায়িত্ব থেকে বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরকে সরিয়ে দেয়া হয়েছে। তার বদলে দলটির স্থায়ী কমিটির সদস্য নজরুল ইসলাম খানকে দায়িত্ব দেয়া হয়েছে।

শনিবার সন্ধ্যায় গুলশানের খালেদা জিয়ার কার্যালয়ে শরিক দলগুলোর এই সিদ্ধান্ত নেয়। এ প্রসঙ্গে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য আমির খসরু মাহমুদ চৌধুরী বলেন, দলের মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বেশি ব্যস্ত থাকেন, এ কারণেই স্থায়ী কমিটির সদস্য নজরুল ইসলাম খানকে ২০ দলীয় জোটের সমন্বয়কের দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে।

নতুন দায়িত্ব পাওয়া নজরুল ইসলাম খান বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, ‘আমি শুধু মিটিং কো-অর্ডিনেট করব।’

তবে জোটের একটি সূত্র জানায়, বৈঠকে মির্জা ফখরুল বলেন, ‘আমি অনেক ব্যস্ত থাকি। আপনাদের সময় দিতে পারি না। এখন থেকে জোটের সমন্বয় করবেন নজরুল ইসলাম খান।’

শনিবার (২৪ মার্চ) রাতে বিএনপি চেয়ারপারসনের গুলশানের রাজনৈতিক কার্যালয়ে ২০ দলীয় জোটের নেতাদের বৈঠকে এ সিদ্ধান্ত নেয়া হয়। এ ছাড়া বৈঠকে চলমান রাজনৈতিক পরিস্থিতি এবং আগামী দিনের আন্দোলন নিয়ে আলোচনা হয়েছে বলে জানা যায়।

এর আগে বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের নেতৃত্বে সন্ধ্যা সোয়া ৭টার দিকে বৈঠক শুরু হয়ে রাত পৌনে ৯টার দিকে শেষ হয়।

বৈঠক সূত্রে জানা যায়, সবার সর্বসম্মতিক্রমে বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের পরিবর্তে দলটির স্থায়ী কমিটির সদস্য নজরুল ইসলাম খানকে জোটের সমন্বয়কারী হিসেবে নতুন দায়িত্ব দেয়া হয়েছে। খালেদা জিয়া কারাগারে যাওয়ার পর মির্জা ফখরুলের দায়িত্ব ও ব্যস্ততা বেড়ে যায়। তাই জোটকে গতিশীল করতে ফখরুল ইসলাম পরিবর্তনে নজরুল ইসলাম খানকে দায়িত্ব দেয়া হয়েছে।

এছাড়া বৈঠকে সিটি করপোরেশন নির্বাচন, দলের সার্বিক পরিস্থিতি পর্যালোচনা ও একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে সামনে রেখে গণতান্ত্রিক আন্দোলন জোরদারের বিষয়টিও আলোচনা হয়েছে বলে জানা যায়।

বৈঠকে জামায়াতে ইসলামীর কেন্দ্রীয় নির্বাহী পরিষদ সদস্য মাওলানা আবদুল হালিম, জাতীয় পার্টির (জেপি) মোস্তফা জামাল হায়দার, বিজেপির চেয়ারম্যান আন্দালিব রহমান পার্থ, কল্যাণ পার্টির চেয়ারম্যান সৈয়দ মুহাম্মদ ইবরাহীম, খেলাফত মজলিসের মাওলানা ইসহাক, এলডিপির মহাসচিব রেদোয়ান আহমেদ, সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব শাহদাত হোসেন সেলিম, জাগপা সাধারণ সম্পাদক খন্দকার লৎফুর রহমান, ইসলামী ঐক্যে জোটের আব্দুর রকিব, লেবার পার্টির (একাংশ) চেয়ারম্যান মোস্তাফিজুর রহমান ইরান, অন্য অংশ এমদাদুল হক, এনপিপি’র ফরিদুজ্জামান ফরহাদ, ন্যাপের চেয়ারম্যান মহাসচিব গোলাম মোস্তফা ভুইয়া, পিপলস লীগের চেয়ারম্যান গরীবে নেওয়াজ, বাংলাদেশ মুসলিম লীগের শেখ জুলফিকার বুলবুল, জমিয়তে ওলামা ইসলামের মহিউদ্দিন ইকরাম, শাহিনুর পাশা, ডেমোক্রেটিক লীগের সাইফুদ্দিন মুনি, সাম্যবাদী দলের সাঈদ আহমেদ, ন্যাশনাল ডেমোক্রেটিক পার্টির মঞ্জুর হোসেন ঈসা উপস্থিত ছিলেন।

এছাড়া বিএনপির নেতাদের মধ্যে মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর ছাড়াও উপস্থিত আছেন দলের স্থায়ী কমিটির সদস্য খন্দকার মোশাররফ হোসেন, নজরুল ইসলাম খান, আমির খসরু মাহমুদ চৌধুরী।

খালেদা জিয়া ছাড়া ২০ দলীয় জোটের শীর্ষ নেতারা শনিবার দ্বিতীয় বারের মত বৈঠক করলেন। চেয়ারপারসন কারাগারে যাওয়ার পর এর আগে একবার একই জায়গায় বৈঠক করেন জোট নেতারা।