দক্ষিণ সুরমা সর. হাইস্কুলের বার্ষিক ক্রীড়ার পুরস্কার বিতরণ

সিলেটের বিভাগীয় কমিশনার আবু আহমদ ছিদ্দীকী বলেছেন, শিশুদের জীবন গড়তে লেখাপড়ার পাশাপাশি খেলাধুলার ব্যবস্থা করতে হবে। লেখাপড়া নিয়ে শিশুদের মধ্যে যেন ভীতি তৈরি না হয় সেজন্য শিক্ষক ও অভিভাবকদের নজর দিতে হবে। তাই শিক্ষা হতে হবে আনন্দের মাধ্যমে প্রতিযোগিতা নয়।

তিনি বলেন, ‘আমরা সবসময় এটা মনে করি যে, খেলাধুলা আমাদের অপরিহার্য। আমাদের ছেলেমেয়েরা যত বেশি খেলাধুলার সঙ্গে সম্পৃক্ত হতে পারবে, সংস্কৃতিচর্চার সঙ্গে সম্পৃক্ত হতে পারবে, সাহিত্যচর্চা করবে, তারা তত সমৃদ্ধ হবে। তাই লেখাপড়ার পাশাপাশি এগুলো একান্তভাবে দরকার।’

বৃহস্পতিবার (১ ফেব্রুয়ারি) সকালে সিলেটের আলমপুরস্থ দক্ষিণ সুরমা সরকারি হাইস্কুলের উদ্যোগে বার্ষিক ক্রীড়া ও সাংস্কৃতিক প্রতিযোগিতার পুরস্কার বিতরণ এবং সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে উপরোক্ত কথাগুলো বলেন।

এসময় বিভাগীয় কমিশনার আরও বলেন, নারীর ক্ষমতায়নে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সুযোগ্য কন্যা প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার সরকার নিরলসভাবে কাজ করছেন। সুতরাং কন্যা সন্তানরা যাতে শিক্ষা থেকে বঞ্চিত না হয় সেদিকেও অভিভাবকদেরও নজর রাখতে হবে।

তিনি বলেন, ভাষা আন্দোলনের আদর্শ ও চেতনা নতুন প্রজন্মের মধ্যে ছড়িয়ে দিতে অঙ্গীকার পূরণে প্রতিশ্রুতিবদ্ধ রয়েছে। ভাষার মাসকে বরণের মাধ্যমে তরুণ প্রজন্ম যেন বাঙালির ইতিহাস-ঐতিহ্যকে লালন করে মাতৃভাষার মর্যাদা রক্ষায় কাজ করে। স্বাধীন বাংলাদেশের স্থপতি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের অসাম্প্রদায়িক স্বপ্নের সোনার বাংলা প্রতিষ্ঠায় সব অপসংস্কৃতি ও অন্যায়ের বিরুদ্ধে বায়ান্ন-একাত্তরের চেতনায় কাজ করার অঙ্গীকারের কথা ব্যক্ত করেন।

দক্ষিণ সুরমা সরকারি হাইস্কুলের প্রধান শিক্ষক বেগম নুছরত হকের সভাপতিত্বে বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন সিলেট জেলার অতিরিক্ত ম্যাজিস্ট্রেট ইমরুল হাসান।

অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন ও উপস্থিত ছিলেন, বাংলাদেশ গার্ল গাইড্স এসোসিয়েশন সিলেট অঞ্চলের আঞ্চলিক কমিশনার বাবলী পুরকায়স্থ, সময় টেলিভিশনের সিলেটের ব্যুরো প্রধান ইকরামুল কবির, সিলেট সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক জহুর আহমদ, প্রধান শিক্ষক নাজমা বেগম, জৈন্তাপুর সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক সাহানা জাফরীন রোজী। অনুষ্ঠানটি পরিচালান করেন দক্ষিণ সুরমা সরকারি হাইস্কুলের শিক্ষক পূর্ণিমা দাশ তালুকদার।