ছোট গর্ত, বড় বিড়ম্বনা

সিলেটের জিন্দাবাজার-চৌহাট্টা সড়ক

রাস্তার দৈর্ঘ্য বড়জোর আধা কিলোমিটার। যানবাহন না থাকলে পুরো রাস্তাই শতমাইল বেগে গাড়ি চালানোর উপযোগী। তবে এতে বাধ সাধে হাতে গোনা কয়েকটি ছোট গর্ত।

রাস্তাটি হলো সিলেট নগরীর প্রাণকেন্দ্র জিন্দাবাজার থেকে চৌহাট্টা। মাস দেড়েক আগে এই রাস্তাটিকে ‘মডেল সড়ক’ হিসেবে ঘোষণা দিয়েছিল সিলেট চেম্বার অব কমার্স এন্ড ইন্ডাস্ট্রিজ। পুরো রাস্তার দৈর্ঘ্য হবে বড়জোর আধা কিলোমিটার। এই আধা কিলোমিটার রাস্তার এ পাশ থেকে ওপাশ পুরোটাই হাইওয়ে মানের। তবে মাঝে মাঝে ৩/৪ হাত দৈর্ঘ্য আর এক থেকে দেড় হাত প্রস্থের ৪ থেকে ৫টি ছোট গর্ত যাতায়াতরত মানুষদের ফেলছে বড় ধরনের বিড়ম্বনায়।

রিকশা, সিএনজি অটোরিকশা, মোটরসাইকেলসহ সকল মোটরযান স্বাভাবিক গতিতে চলতে গিয়ে হঠাৎ গর্তের মুখোমুখি হয়ে পড়ে বড় ধরনের ঝামেলায়। গর্ত এড়াতে গিয়ে কষতে হয় সজোরে ব্রেক, কিংবা পাশ কাটাতে গিয়ে অন্য যানবাহনে গিয়ে লাগে ধাক্কা। না হলে চলতে হয় সোজা গর্তের বুক চিরে। যে কারণে তেতো অভিজ্ঞতা থেকে অনেকেই একহাত নেন সংশ্লিষ্টদের।

এদিকে, এমন ছোট গর্তের কারণে তৈরি হওয়া বড় বিড়ম্বনার বিষয়টি সংশ্লিষ্টদের খামখেয়ালির মাঝেই পড়ে আছে। এ অবস্থায় কথা হয় সড়ক ও জনপথ (সওজ) সিলেটের নির্বাহী প্রকৌশলী উৎপল সামন্ত’র সাথে। তিনি এর দায় দেন সিটি করপোরেশনকে।
উৎপল সামন্ত বলেন, রাস্তাটি সড়ক ও জনপথের হলেও কিছুদিন পরপর রাস্তা খুঁড়ে পানির লাইন টানে সিটি করপোরেশন। কাজের পর ভাঙা রাস্তা মেরামত করে দেয়ার দায়িত্ব সিটি করপোরেশনের উপর থাকলেও তারা মেরামত না করেই চলে যায়। এতে করে রাস্তায় গর্ত হয়ে যায়।

সওজের অভিযোগের ভিত্তিতে সিলেট সিটি করপোরেশনের প্রধান প্রকৌশলী নূর আজিজুর রহমানের সাথে আলাপকালে তিনি বলেন, পানির লাইন টানার কারণেই এটা ভেঙেছে। শীঘ্রই রাস্তার ভাঙা অংশগুলো মেরামত করা হবে।