ছামির মাহমুদের সপরিবারে যুক্তরাজ্য যাত্রা উপলক্ষে ‘সুহৃদ আড্ডা’

ছামির মাহমুদ একজন দায়িত্বশীল সাংবাদিক, সমাজকর্মী। তিনি নিষ্ঠার সাথে তার দায়িত্ব পালন করেছেন। দেশ, গণমানুষ ও সমাজের কল্যাণে তিনি কাজ করেছেন, প্রবাসে গিয়েও তিনি সেই ধারা অব্যাহত রাখবেন। সাংবাদিকতার পাশাপাশি সাংবাদিক নেতা হিসেবেও ছিলেন জনপ্রিয়। তেমনি পারিবারিকভাবেও ছিলেন দায়িত্ববান।

সিলেট জেলা প্রেসক্লাবের সাবেক সাধারণ সম্পাদক ও জাগোনিউজ ২৪ ডটকম’র নিজস্ব প্রতিবেদক ছামির মাহমুদের সপরিবারে যুক্তরাজ্য যাত্রা উপলক্ষে ‘সুহৃদ আড্ডা’য় বক্তারা এসব কথা বলেন।

‘ছামির মাহমুদের বন্ধু-স্বজন, অনুরাগীবৃন্দ’ ব্যানারে আয়োজিত সুহৃদ আড্ডায় সূচনা বক্তব্য রাখেন- আজকের পত্রিকার সিলেট ব্যুরো প্রধান ইয়াহইয়া মারুফ।

কবি ও শিক্ষক সঞ্জয় কুমার নাথের সঞ্চালনায় বক্তারা আরও বলেন, আমরা একজন অভিভাবককে যেন দূরে ঠেলে দিচ্ছি। যিনি সবসময় আমাদের আগলে রাখতেন। দেশ, দশ ও পরিবেশের প্রতি তার টান সবসময় আমাদেরকে মিস করাতে বাধ্য করবে। দেশের ন্যায় প্রবাসেও তিনি সাংবাদিকতায় থাকবেন। নিজের দায়বদ্ধতা থেকে মানুষের কল্যাণে কাজ করবেন। ছামির মাহমুদের মতো যারা চলে যাচ্ছেন, তারা নিজেকে ভালো রাখার পাশাপাশি দেশকে ভালো রাখেন। তারা সেখানে গেলেও দেশকে ভুলেন না। দেশের কল্যাণের জন্য বিভিন্নভাবে কাজ করেন।

বক্তারা আরও বলেন, ‘কবি ও সাংবাদিকের পাশাপাশি ছামির মাহমুদ একজন বিশ্বাসী মানুষ। ছিলেন একজন পরিবেশ আন্দোলনকারী। তিনি পরিবেশ রক্ষায় সবসময় কাজ করেছেন। এইরকম মানুষ চলে গেলে আমরা বৃহৎ শূন্যতা অনুভব করবো। খারাপ লাগলেও নিজের এবং পরিবারের স্বপ্ন পূরণের জন্য তাকে সেখানে যেতে হচ্ছে। দোয়া করি সেখানে ভালো থাকেন।’

শনিবার (০৯ ডিসেম্বর) সন্ধ্যায় নগরের জিন্দাবাজারের গ্রন্থবিপনী ‘বাতিঘর’-এ সুহৃদ আড্ডা বক্তব্য রাখেন- সিলেট মেট্রোপলিটন ইউনিভার্সিটির উপাচার্য অধ্যাপক ড. মোহাম্মদ জহিরুল হক, জ্যেষ্ঠ সাংবাদিক ও মুক্তিযুদ্ধ গবেষক আল আজাদ, সিলেট জেলা আইনজীবী সমিতির সাবেক সভাপতি এমাদুল্লাহ শহিদুল ইসলাম শাহীন, জেলা প্রেসক্লাবের সভাপতি হাসিনা বেগম চৌধুরী, শাবিপ্রবির অধ্যাপক ড. নাজিয়া চৌধুরী, ঐতিহ্যবাহী এমসি কলেজ ছাত্র সংসদের সাবেক ভিপি নজরুল ইসলাম, জগন্নাথপুর উপজেলা পরিষদের সাবেক ভাইস চেয়ারম্যান মুক্তাদির আহমদ মুক্তা, সম্মিলিত নাট্য পরিষদের সভাপতি রজত কান্তি গুপ্ত, কবি ও সাংবাদিক মুহিত চৌধুরী, কবি বিধুভূষণ ভট্টাচার্য, বাপা সিলেটের সাধারণ সম্পাদক আব্দুল করিম কিম, নাট্য ব্যক্তিত্ব শামসুল বাসিত শেরো, মু. আনোয়ার হোসেন রনি, লেখক আলেয়া রহমান, বেতার সিলেট কেন্দ্রের সহকারী পরিচালক প্রদীপ চন্দ্র দাস, সংগঠক প্রণব পাল, লোকসংস্কৃতি গবেষক ও ব্যাংকার পার্থ তালুকদার, ব্যাংকার রাজু আহমদ।

উপস্থিত ছিলেন- লোকসংস্কৃতি গবেষক ও সাংবাদিক সুমন কুমার দাস, লেখক রণদীপন বসু, গল্পকার সেলিম আওয়াল, সিলেট জেলা প্রেসক্লাবের ক্রীড়া ও সাংস্কৃতিক সম্পাদক মিঠু দাস জয়, সিলেট সিটি কর্পোরেশনের জনসংযোগ কর্মকর্তা সাজলু লস্কর, শ্রীমঙ্গল প্রেসক্লাবের ক্রীড়া ও সংস্কৃতি সম্পাদক মামুন আহমদ, জাগোনিউজ ২৪.কমের সিলেট প্রতিনিধি আহমদ জামিল, বিডিনিউজ২৪.কমের সিলেট প্রতিনিধি বাপ্পা মৈত্র, সাংবাদিক মৃনাল কান্তি দাশ, জিকরুল ইসলাম, আজকের পত্রিকার সিলেট প্রতিনিধি লবীব আহমেদ, শাবিপ্রবি প্রেসক্লাবের দপ্তর সম্পাদক নাঈম আহমদ শুভ, বিডিনিউজ২৪.কমের শাবিপ্রবি প্রতিনিধি মো. নুমান মিয়া, সিকৃবির সাংবাদিক মাহমুদুর রহমান সহ সিলেটের শিল্প, সাহিত্য ও সংস্কৃতির বিভিন্ন পেশাজীবি সংগঠনের শতাধিক প্রতিনিধিরা উপস্থিত ছিলেন।

আলোচনা পর্ব শেষে শিল্পী ইকবাল সাঁই ও লিংকন দাস গান পরিবেশন করেন।