চলচ্চিত্র অভিনেত্রী রানী সরকার আর নেই

চলচ্চিত্র অভিনেত্রী রানী সরকার আর নেই। শনিবার (৭ জুলাই) ভোর ৪টার দিকে ধানমন্ডির একটি হাসপাতালে তিনি শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন।

জানা যায়, কয়েক বছর ধরেই বাতজ্বর ও পিত্তথলিতে পাথরসহ শারীরিক বিভিন্ন সমস্যায় ভুগছিলেন রানী সরকার। বার্ধক্যের কারণে এ সমস্যাগুলো বেশি দেখা দিয়েছিল।

তাঁর পরিবার জানায়, প্রথমে ধানমন্ডির ইবনে সিনা হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছিল রানী সরকারকে। এর পর সেখান থেকে ইডেন মাল্টিকেয়ার হাসপাতালে নেয়া হয়। সেখানেই চিকিৎসাধীন অবস্থায় শেষ নিশ্বাস ত্যাগ করেন এই অভিনেত্রী।

বাংলাদেশ চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতি, চলচ্চিত্র পরিচালক সমিতি, চলচ্চিত্র প্রযোজক ও পরিবেশক সমিতি, প্রদর্শক সমিতি, ডিরেক্টর গিল্ডস, ফিল্ম ক্লাবসহ চলচ্চিত্র সংশ্লিষ্ট সকল সংগঠন তাঁর মৃত্যুতে শোক প্রকাশ করেছেন। চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতির সাধারণ সম্পাদক জায়েদ খান জানান, অভিনেত্রী রানী সরকারের জানাজা শনিবার দুপুর ২টা ১৫ মিনিটে এফডিসিতে অনুষ্ঠিত হবে।

ষাটের দশকে বাংলা সিনেমার সফল অভিনেত্রী রানী সরকারের জন্ম সাতক্ষীরা জেলার সোনাতলা গ্রামে। তাঁর আসল নাম মোছাম্মৎ আমিরুন নেসা খানম। ১৯৫৮ সালে মঞ্চনাটকের মাধ্যমে তাঁর অভিনয়ে পথচলা শুরু। সে বছর এ জে কারদারের ‘দূর হ্যায় সুখ কা গাঁও’ সিনেমায় অভিনয়ের মাধ্যমে চলচ্চিত্রে নাম লেখান তিনি। কর্মজীবনে আড়াই শতাধিক সিনেমায় অভিনয় করেছেন রানী সরকার। এর পর এহতেশামের ‘চান্দা’ সিনেমায় চিত্রনায়িকা শবনমের মায়ের ভূমিকায় অভিনয় করেছিলেন।

এছাড়া রানী সরকার ‘তালাশ’, ‘বন্ধন’, ‘সঙ্গম’, ‘ইস ধারতি পার’, ‘পেয়সে’, ‘কেয়সে কাহু’, ‘আযান’, ‘কাঁচের দেয়াল’, ‘কাঁচ কাটা হীরে,’ ‘বেহুলা’, ‘আনোয়ারা’, ‘ছদ্মবেশী’, ‘ভাওয়াল সন্ন্যাসী’, ‘তিতাস একটি নদীর নাম’, ‘চন্দ্রনাথ’, ‘শুভদা’, ‘দেবদাস’সহ প্রায় ৩০০ চলচ্চিত্রে অভিনয় করেন।