কোটা আন্দোলনকারীদের ওপর হামলায় হাবিপ্রবিতে বিক্ষোভ

কোটা সংস্কার আন্দোলনকারীদের ওপর দফায় দফায় সন্ত্রাসী হামলা ও দ্রুত প্রজ্ঞাপনের দাবিতে হাজী মোহাম্মদ দানেশ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে (হাবিপ্রবি) বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়েছে।

সোমবার (২ জুলাই) সকাল সাড়ে ১০ টায় হাবিপ্রবি’র টিএসসি থেকে বিক্ষোভ মিছিল শুরু হয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের গুরুত্বপূর্ণ সড়ক, একাডেমি ভবনসহ ঢাকা-দিনাজপুর মহাসড়ক প্রদক্ষিণ করে ড. এম এ ওয়াজেদ ভবনের সামনে এসে সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়।

হাবিপ্রবি কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্যরা বলেন, কোটা আন্দোলনকারীদের উপর বারবার সন্ত্রাসী হামলা চালানো হচ্ছে। এতে আমাদের দমিয়ে রাখা যাবে না। ইতিহাস সাক্ষী রয়েছে, ছাত্রদের আন্দোলন কোনোদিন সন্ত্রাসী হামলা চালিয়ে দমিয়ে রাখা যায়নি, আগামীতেও পারবে না।

তারা আরও বলেন, কোটা সংস্কারের প্রজ্ঞাপন জারি না হওয়া পর্যন্ত কেন্দ্রীয় কমিটির নির্দেশনা অনুসারে হাবিপ্রবিতে সকল ধরনের ক্লাস-পরীক্ষা বর্জন করে আন্দোলনকে বেগবান করা হবে।

সমাবেশে যোগদান করা এক শিক্ষার্থী বলেন, আমরা আবার প্রমাণ করবো, ভয়-ভীতি হুমকি-ধমকি দিয়ে এ আন্দোলন প্রতিহত করা যাবে না। আমাদের ভদ্রতাকে সরলতা ভাববেন না। মানুষরূপী শয়তানদের বলতে চাই, দাবি আদায়ে বাঙ্গালি কখনো পিছপা হয়নি, কখনো হবে না।

আরেক শিক্ষার্থী বলেন, যে দেশে প্রধানমন্ত্রী নারী, সে দেশে আজ নারীরাই নিরাপদ নয়। পুলিশ প্রশাসন সহ সরকার কি করছে? তারা কি দেখতে পায় না নারীদের উপর কুকর্মীরা সন্ত্রাসী হামলা চালাচ্ছে?

এসময় আন্দোলনকারীরা “হামলাকারীর কালো হাত ভেঙে দাও, নুর ভাইয়ের রক্ত বৃথা যেতে দিব না, হামলা করে আন্দোলন বন্ধ করতে পারবে না”, এ ধরনের বিভিন্ন স্লোগান দেন।

সমাবেশে বক্তব্য দেন সংগঠনের আহ্বায়ক সহিদুল ইসলাম ফাহিম, সমন্বয়ক দীপ সরকার, যুগ্ম আহ্বায়ক জুয়েল রানা প্রমুখ।