কুলাউড়ায় বন্দুকযুদ্ধে ডাকাত সর্দার নিহত, ৪ পুলিশ আহত

মৌলভীবাজারের কুলাউড়ায় পুলিশের সাথে বন্দুকযুদ্ধে ডাকাত দলের সর্দার ইসলাম উদ্দিন ওরফে ইসলাম আলী (৪৫) নিহত হয়েছে। বন্দুকযুদ্ধে কুলাউড়া থানার ৪ পুলিশ আহত হয়। বৃহস্পতিবার (৩১ মে) ভোরে রাত ৪টায় উপজেলার হাজিপুর ইউনিয়নের পাবই গ্রামে এই বন্দুকযুদ্ধের ঘটনা ঘটে।

নিহত ইসলাম উদ্দিন ওরফে ইসলাম আলী জেলার কমলগঞ্জ উপজেলার কুমারকাপন গ্রামের মতসিন আলী ওরফে তমছির আলীর ছেলে। তার বিরুদ্ধে শুধু মৌলভীবাজার জেলার বিভিন্ন উপজেলায় ডাকাতিসহ ১৪টি মামলা রয়েছে।

কুলাউড়া থানা সুত্রে জানা যায়, ভোর ৪ টার দিকে কুলাউড়া থানা পুলিশের কাছে খবর আসে পাবই গ্রামে ডাকাত দল হানা দিয়েছে। এসময় পুলিশ ওই এলাকায় দ্রুত পৌছালে ডাকাতদল টের পেয়ে যায়। এসময় একটি বাশঝাড়ের নিচে ১০/১২ জন ডাকাত অবস্থান করছিল। তারা পুলিশকে উদ্দেশ্য করে গুলি ছুড়তে শুরু করে। এক পর্যায়ে পুলিশও আত্মরক্ষার্থে পাল্টা গুলি চালায়। কিছুক্ষণ গুলি বিনিময়ের পর ডাকাত দল পিছু হটে। তখন আশপাশ খুঁজে একটি মরদেহ উদ্ধার করা হয়। পরে সকালে স্থানীয়দের কাছ থেকে সে ইসলাম উদ্দিন ওরফে ইসলাম আলী বলে পরিচয় নিশ্চিত হওয়া যায়।

কুলাউড়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মমর্তা শামীম মুসা ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, এসময় ঘটনাস্থলে ব্যাপক তল্লাশি করে গুলিবর্তী এলজি পাইপগান, ২ টি খালি কার্তুজ, ৩ টি অব্যবহৃত কার্তুজ এবং বাঁশঝাড়ের ঝোঁপের মধ্য থেকে ২ টি ডেগার, ৩ টি রাম দা ও ১ টি সাদা প্লাস্টিকের বস্তা উদ্ধার করা হয়েছে। সে আন্তঃবিভাগীয় ডাকাত দলের সর্দার ছিল বলে জানিয়েছে পুলিশ।

এদিকে ডাকাতদলের সাথে গুলাগুলির সময় আহত পুলিশ সদস্য খাইরুল ইসলাম (আরআরএফ কং/২৬০), আব্দুল কুদ্দুছ মিয়া (কং/২৪৭) কুলাউড়া হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। এছাড়া এসআই ইয়াছিন ও আলবাব (আরআরএফ কং/৭৫২) প্রাথমিক চিকিৎসা নিয়েছেন।

অতিরিক্ত পুলিশ সুপার আবু ইউছুফ জানান, নিহত ইসলাম ডাকাতের মৃতদেহ সুরতহাল রিপোর্ট প্রস্তুত করে ময়না তদন্তের জন্য মৌলভীবাজার মর্গে প্রেরণ করা হয়েছে।