কামরানের জয়ে ফুটপাত হবে হকারমুক্ত

নির্বাচিত হলে সিলেট নগরীর ফুটপাতকে হকারমুক্ত করা হবে বলে ঘোষণা দিয়েছেন আওয়ামী লীগ মনোনীত মেয়র প্রার্থী বদর উদ্দিন আহমদ কামরান। বুধবার (২৫ জুলাই) নগরীর একটি রেস্টুরেন্টের কনফারেন্স হলে নিজের নির্বাচনী ইশতেহারে তিনি ঘোষণা দেন।

এসময় কামরান বলেন- মেয়র নির্বাচিত হলে সিলেট নগরীর ফুটপাতকে হকারমুক্ত করা হবে। হকারদের পুনর্বাসনের জন্য প্রতিষ্ঠা করা হবে চারটি হকার মার্কেট। বিশ্বের উন্নত শহরের মত সাপ্তাহিক বন্ধের দিন রাখা হবে বিশেষ মার্কেটের ব্যবস্থা। লালদিঘি মার্কেট ভেঙে সেখানে নির্মাণ করা হবে বহুতল ভবন। এই ভবনে আবাসনের ব্যবস্থা থাকবে। সেখানে স্বল্প আয়ের বিভিন্ন পেশাজীবীদের জন্য স্বল্পমূল্যে আবাসনের ব্যবস্থা করা হবে।

ফুটপাতকে হকারমুক্ত করার ঘোষণার পাশাপাশি কামরান নগরকে যানজট মুক্ত করতে বিশেষ উদ্যোগ গ্রহণ করার বিষয়টি ইশতেহারে তুলে ধরেন।

তিনি বলেন- সিলেট নগরীকে যানজটমুক্ত করতে বিশেষ উদ্যোগ নেয়া হবে। তৈরি করা হবে লিংক রোড। নগরের অভ্যন্তরীন সকল রাস্তা প্রশস্তকরণের ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। গড়ে তোলা হবে নগরে একাধিক স্ট্যান্ড। সেন্ট্রাল কার পার্কিংয়েরও ব্যবস্থা করা হবে। তাছাড়া ট্র্যাফিক সিগন্যাল লাইট স্থাপন, ফুট ওভার ব্রিজ নির্মাণ, ফুটপাত প্রশ্বস্তকরণ এবং জনসাধারণের স্বাচ্ছন্দ্যে ও নিরাপদ হাঁটা চলার ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। সেইসঙ্গে আধুনিক ও বিশ্বমানের বাসস্ট্যান্ড ও ট্রাক টার্মিনাল নির্মাণ করা হবে। উদ্যোগ নেওয়া হবে ফ্লাইওভার নির্মাণের। বিশ্বের অন্যান্য শহরের মত আলাদা সাইকেল লেন স্থাপনে কার্যকরী পদক্ষেপ গ্রহণ করা হবে বলেও তিনি উল্লেখ করেন।

ইশতেহারে নগরীর জলবদ্ধতা নিয়েও কথা বলেন কামরান। তিনি বলেন- জলবাদ্ধতা থেকে নগরবাসীকে রেহাই দিতে অবৈধ দখলদারদের দখলে থাকা ছড়া এবং খালগুলো উদ্ধার করে খনন করা হবে। পাশাপাশি ড্রেনেজ ব্যবস্থার উন্নয়নে নেওয়া হবে বিশেষ প্রকল্প। সুরমা নদী ড্রেজিং এখন সময়ের দাবি। এ ব্যাপারে সরকারের সঙ্গে আলোচনা করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

এ সময় তিনি বলেন- নগরবাসীকে শতভাগ বিশুদ্ধ পানি সরবরাহের ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। পুরোনো ওয়াটার ট্রিটমেন্ট প্ল্যান্ট সংস্কার ও নতুন ওয়াটার ট্রিটমেন্ট প্লান্ট স্থাপন করার বিষয়টিও তিনি উল্লেখ করেন।

নির্বাচনী ইশতেহার পাঠ শেষে কামরান উপস্থিত সাংবাদিকদের ধন্যবাদ জানান। এসময় কামরান বলেন, এটা আমার জীবনের শেষ নির্বাচন, আগামী নির্বাচন পর্যন্ত আমি নাও থাকতে পারি। আমার বিশ্বাস এই নির্বাচন সুষ্ঠু, অবাধ ও নিরপেক্ষ হবে। তাই সকলে সহযোগিতা কামনা করছি। এসময় আবেগঘন পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়।

সিলেট মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আসাদ উদ্দিন আহমদের পরিচালনায় ইশতেহার ঘোষণা অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন, আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আলী আহমদ, মিসবাহ উদ্দিন সিরাজ, আওয়ামী লীগ নেতা হাবিবুর রহমান সিরাজ, সুজিত রায় নন্দী, আমিনুল ইসলাম চৌধুরী, জে‌লা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক শফিকুর রহমান চৌধুরী, মহানগর আওয়ামী লীগের সহ সভাপতি আশফাক আহমদ, আওয়ামী লীগ নেতা মোশাররফ হোসেন কাজল, ফয়জুল আনোয়ার আলোয়ার, জাকির হোসেন, বিজিত দে, হুমায়ুন আহমেদ কামাল, শফিউল আলম নাদেল, জেবুল হাসান, এড. মশাহিদ আলী, এড. সামসুল ইসলাম, আজাদুর রহমান আজাদ, রনজিৎ সরকার, এড. নাসির, শাহরিয়ার কবির, আলম খান মুক্তি, মুশফিক জায়গীরদার প্রমুখ।