এসআইইউতে ‘গণহত্যা দিবস ও ব্ল্যাক-আউট’ পালন

৯৭১ সালের ২৫শে মার্চ বাঙালী জাতির জীবনে এক বিভীষিকাময় রাত নেমে আসে। বাঙালী জাতির উপর মধ্যরাতে রক্ত পিসাসু হিংস্র পাকিস্তানী হানাদার বাহিনী তাদের পূর্ব পরিকল্পিত অপারেশন সার্চলাইট নামে ইতিহাসের সবচেয়ে নির্মম, ঘৃণ্য, বর্বরোচিত, পৈশাচিক হামলা চালায়। রোববার ছিল সেই নির্মম নৃশংস ও ভয়াবহ এক হত্যাযজ্ঞের দিন। বাংলাদেশ সরকার ইতিমধ্যে ২৫শে মার্চ কে জাতীয় গণহত্যা দিবস হিসেবে স্বীকৃতি দিয়েছে।

দিনটি উপলক্ষে সিলেট ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটিতে সকল শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে সন্ধ্যা ৭ টায় পুরো বিশ্ববিদ্যালয় জুড়ে প্রদীপ প্রজ্জ্বলন করা হয়। এরপর ৭১ সালের ২৫শে মার্চের এই দিনে আত্মদানকারী শহীদদের স্মরণে অনুষ্ঠিত হয় আলোচনা সভা।

এসআইইউ’র প্রশাসন ও জনসংযোগ পরিচালক তারেক উদ্দিন তাজের সঞ্চালনায় ও ভারপ্রাপ্ত উপাচার্য প্রফেসর মো. মনির উদ্দিনের সভাপতিত্বে আলোচনা অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন- সিলেটের বিশিষ্ট শিক্ষানুরাগী ও সিলেট ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটির বোর্ড অব ট্রাস্টিজের চেয়ারম্যান শামীম আহমদ।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি বলেন- দেশ মাতৃকার আহবানে ২৫শে মার্চের ভয়াল সেই কালো রাত্রের আত্মদানকারী সেই সব শহীদদের মতো দেশের জন্য আমাদের সকলের আত্মদানের মানসিকতা থাকতে হবে। আর এ ধরণের আত্মদানের মানসিকতা থাকলে আমাদের এই প্রাণ প্রিয় দেশের অগ্রযাত্রাকে কেউ দমিয়ে রাখতে পারবে না।

আরও বক্তব্য রাখেন, মানবিক অনুষদের ডিন প্রফেসর সৈয়দ মুয়ীজুর রহমান, বিজ্ঞান অনুষদের ডিন প্রফেসর ঋষি কেশ ঘোষ, পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক হাসান মাহমুদ, অর্থ পরিচালক সুশান্ত আচার্য্য, প্রক্টর প্রধান মাহবুব ইবনে সিরাজ, ইসিই বিভাগের বিভাগীয় প্রধান এক্রামুল ফারুক, ব্যবসায় প্রশাসন বিভাগের বিভাগীয় প্রধান আবু ছয়ীদ মোহাম্মদ আব্দুল্লাহ, আইন বিভাগের বিভাগীয় প্রধান হুমায়ুন কবির, সিএসই বিভাগের বিভাগীয় প্রধান খালেদ হোসাইন, ডেপুটি লাইব্রেরিয়ান মোস্তফা কামাল প্রমুখ।

এসময় বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন বিভাগের শিক্ষক-শিক্ষার্থী, কর্মকর্তা, কর্মচারী বৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

সর্বশেষে বিশ্ববিদ্যালয় পরিবারের সকলের উপস্থিতিতে রাত ৯ টা থেকে ৯:০১ পর্যন্ত সকল আলো নিভিয়ে ২৫শে মার্চের সেই ভয়াল রাতের সকল শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে ১ মিনিট ব্ল্যাক-আউট পালন করা হয়।