এখানে জিততেই এসেছি: সিলেটে হাথুরুসিংহে

শেষ টি-২০তে মুখোমুখি বাংলাদেশ-শ্রীলঙ্কা

সিলেটে শেষ টি-২০ এর আগে প্রেস কনফারেন্সে হাথুরুসিংহে

আমরা কোন ম্যাচ হারতে চাই না। এখানে জিততেই এসেছি। শেষটাও ভালো করা অনুপ্রেরনার হবে। বললেন চণ্ডিকা হাথুরুসিংহে। টি২০ সিরিজের শেষম্যোচের আগের শনিবার সকালে সংবাদ সম্মেলনে এমন মন্তব্য করেন এই লংকান কোচ।

রোববার সন্ধ্যায় সিলেট ক্রিকেট স্টেডিয়ামে অনুষ্ঠিত হবে বাংলাদেশ-শ্রীলঙ্কার শেষ টি২০। শেষ ম্যাচ খেলতে শুক্রবার সিলেট এসেছে দুই দল। শনিবার সকালে স্টেডিয়ামে অনুশীলন করে শ্রীলঙ্কা দল। যারা প্রথম ম্যচ জেতে ইতোমধ্যে সিরিজে এগিয়ে আছে। অনুশীলন শেষে সংবাদ সম্মেলনে আসেন লঙ্কান কোচ।

ত্রিদেশীয় সিরিজ জয়ের পর টেস্ট সিরিজ জয়। টি২০-তেও জয় দিয়ে শুরু। কোচের দায়িত্ব নেওয়ার পর প্রথম সফরেই শতভাগ সাফল্য ঘরে তুললেন হাথুরু। এ নিয়ে খুশি তিনিও। বলেন- ‘খেলোয়াড়দের কাছ থেকে এরকম সাড়া পেয়ে আমি আসলে সন্তুষ্ট। আমার মনে হয় নিজের দেশের জন্য হওয়ায় যোগাযোগটা ছিল পোক্ত। কিছু সময় লাগলেও তারা দারুণভাবে চ্যালেঞ্জ নিয়েছে।‘

২০১৪ থেকে ২০১৭। প্রায় সাড়ে তিন বছর বাংলাদেশের দায়িত্ব পালন করেছেন হাথুরুসিংহে। টাইগারদের স্কিলের শক্তি কিংবা ঘাটতি সব তো জানা আছেই। জানা আছে সবার অ্যাপ্রোচ, চিন্তা ভাবনার জগতও সব নখদর্পণে । কদিন আগেই ছিলেন যে দলের প্রধান কোচ, পরের সিরিজে তাদের প্রতিপক্ষ বনে যাওয়ায় পরিকল্পনা করা সহজ হয়েছে তার।

বাংলাদেশ নিয়ে জানাশোনা কাজে লেগেছে কিনা এমন প্রশ্ন এবার সহজ স্বীকারোক্তি, ‘আমার মনে হয়, হ্যাঁ। কয়েকজন খেলোয়াড়কে নিয়ে আমাদের কিছু কৌশলগত পরিকল্পনা ছিল। আমরা জানতাম চাপে পড়লে তারা কেমন প্রতিক্রিয়া দেখায়।’

বাংলেদেশ দলের পারফম্যান্স প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ত্রিদেশীয় সিরিজে তারা ভালো শুরু করেছে। তারা বাকি দুই দলকেই চাপে ফেলেছিল। আমার মনে হয় তারা কিছু ভুল করে তারা নিজেদের মধ্যে দ্বিধাগ্রস্থ হয়ে যায়। আমি অবাক হয়েছি তারা দ্রুতই চাপে পড়ে গেছে।’

এই সিরিজের প্রথম থেকেই আলোচনায় উইকেট। আজ সংবাদ সম্মেলনেও এলো সিলেট স্টেডিয়ামের উইকেট প্রসঙ্গ। লংকান কোচ বলেন, উইকেট এখনো শতভাগ প্রস্তুত নয়। আমরা কাল আবার আসব এবং দেখব কেমন হয়। এখন আমি কিছু বলতে পারছি না।

তরুণদের নিয়ে গড়া বর্তমান লঙ্কান দল নিয়ে আশাবাদী কোচ বলেন, আমাদের অনেক সম্ভাবনাময় খেলোয়াড় আছে, এক দুজন নয়। এদের বড় ভবিষৎ আছে। তাদের অনেক দূর যেতে হবে। আমি রোমাঞ্চিত যে একটা সম্ভাবনাময় দল পেয়েছি।

ভবিষ্যত পরিকল্পনা প্রসঙ্গে তিনি বলেন, সত্যি কথা বলতে এটা এখন অনেক দূরের চিন্তা। এই সিরিজ জেতাই আমাদের মূল ফোকাস। তারপর অন্য কিছু ভাবব। আপনি যদি পরিকল্পনা কাজে লাগান র‍্যাঙ্কিং এমনিতেই আগাবে।

এখনো বাংলাদেশ দলের সাফল্য প্রত্যাশা করেন জানিয়ে টাইগারদের এই সাবেক গুরু বলেন, প্রথম দুই ম্যাচে তারা (বাংলাদেশ) শক্তিশালী পারফরম্যান্স দেখিয়েছে, যেটা আমি আশা করেছিলাম। এটা না হলে আমি বরং হতাশ হতাম। আমি খুশি ছিলাম। এবং তারপর আমাদের (শ্রীলঙ্কা) ফিরে আসার পর খুশি হই। সব মিলিয়ে ব্যক্তিগতভাবে এটা খুবই সন্তুষ্টজনক সফর। কিন্তু আবারও বলছি, আমি যাওয়ার পরও চেয়েছি বাংলাদেশ ভালো করুক। তারা কেমন করছে তাতে আমার চোখ ছিল।