আ.লীগ প্রচারণায়, অভিযোগ নিয়ে ব্যস্ত বিএনপি

প্রচারণার ৮ম দিনেও নগরজুড়ে প্রচারণা অব্যাহত রেখেছেন আওয়ামী লীগ মেয়র প্রার্থী বদর উদ্দিন কামরান। আর প্রচারণার পাশাপাশি রিটার্নিং কর্মকর্তার কাছে অভিযোগ নিয়ে ব্যাস্ত বিএনপির মেয়র প্রার্থী আরিফুল হক চৌধুরী।

এর আগে একাধিকবার অভিযোগ দেয়ার পর মঙ্গলবার (১৭ জুলাই) সিলেট সিটি নির্বাচনে বিএনপির মেয়রপ্রার্থী আরিফুল হক চৌধুরী আবারো আচরণবিধি লঙ্ঘনের অভিযোগ তুলেছেন আওয়ামী লীগ মেয়র প্রার্থীর বিরুদ্ধে। আরিফুল হকের পক্ষে পৃথক দুটি অভিযোগ রিটার্নিং কর্মকর্তার কাছে জমা দেন জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক আলী আহমদ।

প্রথম, অভিযোগটিতে প্রশাসনের পক্ষ থেকে নির্বিচারে গ্রেপ্তার ও হয়রানি করার কথা উল্লেখ করা হয়। এতে বলা, বিএনপিসহ ২০ দলীয় জোটের নেতাকর্মীদের অব্যাহতভাবে গণগ্রেপ্তার করা হচ্ছে, তাদের বাড়িতে সাদা পোষাকের লোকজন গিয়ে হুমকি ধামকি প্রদর্শন করছেন, এছাড়া তাদের নির্বাচনী কার্যক্রমে অংশ নিতে বাধা দেয়া হচ্ছে। এছাড়া আরেকটি অভিযোগে, মেয়র প্রার্থী বদর উদ্দিন আহমদ কামরান সিলেটের ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল এলাকায় মাইক বাজিয়ে জনসমাবেশ করেছেন, যা আচরণবিধির লঙ্ঘন হিসেবেই উল্লেখ করেছেন।

এ ব্যাপারে, জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক আলী আহমদ বলেন, সরকারী দল একদিকে আচরণবিধি লঙ্ঘন করেই চলেছে আর প্রশাসন আমাদের কর্মীদের ঘরছাড়া করছে। আমরা একাধিক অভিযোগ জানালেও এর কোনো প্রতিকার পাচ্ছি না। সরকারি দলের মেয়র বলেই কি তিনি ওসমানী মেডিকেলের মতো একটা স্পর্শকাতর জায়গায় ৮ টি মাইক লাগিয়ে জনসভা করবে আর আমাদের কর্মীদের রাতে ঘরে এসে হুমকি দিয়ে যাচ্ছে এভাবে সুষ্ঠু নির্বাচন সম্ভব নয়। আশা করি নির্বাচন কমিশন তার নিরপেক্ষতা বজায় রাখবে।

অভিযোগের প্রসঙ্গে সহকারী রিটার্নিং কর্মকর্তা প্রলয় কুমার সাহা বলেন, বিএনপির প্রার্থীর পক্ষে জমা দেওয়া অভিযোগ দুটি পেয়েছি। তদন্ত সাপেক্ষে ব্যবস্থা গ্রহণের নির্দেশ দেয়া হয়েছে।

এদিকে আওয়ামী লীগের মেয়র প্রার্থী বদর উদ্দিন আহমদ কামরান ব্যস্ত সময় কাটাচ্ছেন প্রচারণায়। মঙ্গলবার সকাল থেকেই নগরীর আম্বরখানা মনিপুরীপাড়া, সুনামগঞ্জ রোড, হাউজিং এস্টেট, মধুশহীদ, ওসমানী মেডিকেল সহ বিভিন্ন ওয়ার্ডে গণসংযোগে ব্যস্ত ছিলেন।

এসময় তিনি বলেন, দেশবাসীর প্রাণের সংগঠন আওয়ামী লীগ ও প্রিয় প্রতীক নৌকা হচ্ছে সাম্য ও সম্প্রীতির প্রতীক। নৌকা বিজয়ী হলে সমাজ ও রাষ্ট্রে সুন্দর পরিবেশ বিরাজ করে, দৃঢ় হয় সম্প্রীতির বন্ধন। তাই আগামী ৩০ জুলাই অনুষ্ঠিতব্য সিলেট সিটি নির্বাচনে ধর্ম-বর্ণ নির্বিশেষে সবাই নিজ নিজ মূলবান ভোট দিয়ে স্বাধীনতার প্রতীক নৌকাকে বিজয়ী করতে হবে।

মেয়র প্রার্থী কামরান বলেন, সিলেট সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির আদর্শ জনপদ। এখানে বসবাসকারী বিভিন্ন ধর্মের লোকজনের পরস্পরের সাথে রয়েছে চমৎকার সম্পর্ক। সবাই পরস্পরের সুখ-দুঃখের সঙ্গী। কারো কোনো অনুষ্ঠান হলে সবাই মিলে তা উপভোগ করেন। আর এ সম্পর্ক আরো দৃঢ় করতে এবারের নির্বাচনে নৌকা প্রতীককে জয়ী করুন।

এসময় উপস্থিত ছিলেন- সিলেট সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আশফাক আহমদ, জেলা আওয়ামী লীগের যুব ও ক্রীড়া সম্পাদক অ্যাডভোকেট রনজিত সরকার, মহানগর যুবলীগের আহবায়ক আলম খান মুক্তি, সেলিম আহমদ, অ্যাডভোকেট আফছর আহমদ, বেলাল খান, বেণু ভূষণ ব্যানার্জী, পরিমল সিংহ, লিকজিং সিংহ, পঞ্চ সিংহ, প্রমোদ সিংহ, নিকজিত সিংহ, সুতরাং সিংহ, খোকন মিয়া, সুব্রত সামন্ত সরকার, শফিক উদ্দিন ইমদাদ হোসেন ইমু, বখতিয়ার হোসেন প্রমুখ।