আশ্বাস নিয়ে ফিরছেন সিলেট ছাত্রদলের বিদ্রোহীরা

আসন্ন সিটি নির্বাচন পরেই ঘোষিত সিলেট জেলা ও মহানগর ছাত্রদলের কমিটি রাখা না রাখা নিয়ে নতুন করে সিদ্ধান্ত নেয়ার কথা জানিয়েছে ছাত্রদল কেন্দ্রীয় সংসদ। কেন্দ্র থেকে তলবের পর শবিবার বিকেলে সিলেট ছাত্রদলের বিদ্রোহী ও পদত্যাগকারী ৯ নেতা কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দের সাথে দেখা করলে তাদেরকে এ আশ্বাস দেয়া হয়।

সিলেট জেলা ও মহানগর ছাত্রদলের কমিটি নিয়ে বিবদমান দ্বন্দ্ব ও আসন্ন সিলেট সিটি করর্পোরেশনের নির্বাচনে সংঘর্ষ এড়াতে এবং সাংগঠনিক তৎপরতা বৃদ্ধির লক্ষ্যে পদত্যাগকারী ছাত্রদলের বিদ্রোহী গ্রুপের ৯ নেতাকে কেন্দ্রে জরুরী তলব করা হয়। আর এই জরুরী তলবে শনিবার (১৪ জুলাই) ঢাকার পথে রওয়ানা হন জেলা ছাত্রদলের সিনিয়র সহ সভাপতি নজরুল ইসলাম, সহ সভাপতি মাসরুর রাসেল, সহ সভাপতি শিহাব খাঁন, যুগ্ম সম্পাদক সুহেল ইবনে রাজা, যুগ্ম সম্পাদক আনোয়ার হোসেন রাজু এবং মহানগর ছাত্রদলের সহ সভাপতি সুহেল রানা, যুগ্ম সম্পাদক শাকিলুর রহমান, সহ সাধারণ সম্পাদক আবুল হোসেন, সহ সাংগঠনিক সম্পাদক মুহিবুল মজিদ চৌধুরী মুহিব।

এছাড়া তাদের সাথে ছিলেন- বদবঞ্চিত ছাত্রদল নেতা আশরাফ উদ্দিন রুবেল, বদরুল আজাদ রানা, ইমরুল হোসেন হিমেল, কামরান হোসেন, লোকমান হোসেন, আব্দুস সালাম, আবু ইয়ামিন চৌধুরী ও ফয়জুল হক রাজু।

বিকেলে কেন্দ্রীয় নেতৃত্বের সাথে বৈঠক করেন সিলেট ছাত্রদলের সদ্যপদত্যাগী নেতারা। বৈঠকে বর্তমান জেলা ও মহানগর ছাত্রদলের নবগঠিত কমিটির বিভিন্ন ব্যাপারে কেন্দ্রীয় নেতাদের অবহিত করেন তারা। নেতারা ধৈর্য্য সহকারে তাদের কথা শোনেন। পরবর্তীতে কেন্দ্রীয় নেতারা সিলেট সিটি নির্বাচনের পরে এ ব্যাপারে ব্যবস্থা নেবেন বলে আশ্বাস দেন। বৈঠকে অংশ নেয়া জেলা ছাত্রদলের সদ্যপদত্যাগী সহ সভাপতি মাসরুর রাসেল সিলেট ভয়েসকে এসব তথ্য নিশ্চিত করেন।

তিনি বলেন, ‘কেন্দ্রীয় সাধারণ সম্পাদক আকরামুল হাসানের সাথে বর্তমান কমিটি নিয়ে ফলপ্রসু আলোচনা হয়েছে, তিনি বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানের সাথে আলাপ করে আগামী ৩০ তারিখের পর এব্যাপারে চুড়ান্ত সিদ্ধান্ত জানাবেন বলেছেন।‘

এর আগে গত ১৩ জুন রাতে সিলেট জেলা ও মহানগর কমিটি ঘোষণার ২৪ ঘণ্টা পেরোনোর আগেই নবগঠিত সিলেট নতুন জেলা ও মহানগর ছাত্রদলের কমিটি থেকে পদত্যাগের ঘোষণা দেন সিনিয়র ৯ নেতা। শিক্ষিত, ত্যাগী ও যোগ্যদেরকে কমিটিতে স্থান না দেওয়ার অভিযোগে ১৪ জুন দুপুরে তারা এ পদত্যাগের ঘোষণা দেন।

এরপর গত ৩ জুলাই তারা সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে তাদের পদত্যাগের বিষয়টি পরিস্কার করেন। এসময় তারা ঘোষিত কমিটিকে ‘কালো টাকায় আঁতাতের কমিটি’ হিসেবে উল্লেখ করেন।