আন্দোলনকারীদের উপর হামলায় মার্কিন দূতাবাসের নিন্দা

কোটাপ্রথার সংস্কার নিয়ে আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের শান্তিপূর্ণ কর্মসূচীতে ভয়াবহ হামলার নিন্দা জানিয়েছে যুক্তরাষ্ট্র দূতাবাস। সেমাবার (৯ জুলাই) দূতাবাসের ফেসবুক পাতায় এক পোস্টে বলা হয়েছে, বাংলাদেশের গর্বিত গণতন্ত্রের ভবিষ্যৎ নেতৃত্বের ওপর এই আক্রমণ দেশটির মৌলিক নীতির পরিপন্থী।

দূতাবাসের বিবৃতিতে বলা হয়েছে, ‘যারা বাক স্বাধীনতা, সমাবেশ ও শান্তিপূর্ণ বিক্ষোভে অংশ নেওয়ার গণতান্ত্রিক অধিকার চর্চা করছে যুক্তরাষ্ট্র সহমর্মিতা নিয়ে তাদের পাশে আছে।’

এই বিবৃতির সাথে ‘পিসফুলপ্রটেস্টবিডি’ নামে একটি হ্যাশট্যাগ সংযুক্ত করা হয়েছে, যাতে এ বিষয় নিয়ে আরো মন্তব্য বা পোস্ট রয়েছে। মার্কিন দূতাবাসের ফেসবুক পাতার এ বিবৃতিটি এখন পর্যন্ত বহুলোক শেয়ার করেছেন।

উল্লেখ্য, সরকারি চাকরিতে প্রচলিত কোটা পদ্ধতি সংস্কারের ঘোষণা সম্বলিত প্রজ্ঞাপন জারির দাবিতে রাজপথে আন্দোলনে নেমেছে বাংলাদেশের বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয় ও শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের ছাত্রছাত্রীদের একাংশ। এ আন্দোলনে গত কয়েকদিনে ঢাকা এবং রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে আন্দোলনরত ছাত্রদের ওপর হামলা চালায় সরকার সমর্থিত ছাত্র সংগঠন ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা। বাদ পড়েনি ছাত্রীরাও। এমনকি হামলার পর কয়েকজন ছাত্রকে তুলে নিয়ে গিয়ে পুলিশে সোপর্দ করা হলে তাদের বিভিন্ন পুরনো মামলায় গ্রেফতার দেখিয়ে কারাগারে পাঠানো হয়েছে। তাদের দফায় দফায় রিমান্ডেও নেওয়া হচ্ছে। এসব হামলার প্রতিবাদে জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে অভিভাবক সমাবেশ ও মানববন্ধন করতে গিয়ে পুলিশের কাছে লাঞ্ছিত হয়েছেন কয়েকজন বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকও।