আনন্দ মহাযজ্ঞে সিলেট জেলা প্রেসক্লাবের একদিন

উদযাপিত হল ‘পরিবার উৎসব’

জেলা প্রেসক্লাবের ‘পরিবার উৎসব’-এ সিটি মেয়র আরিফুল হক চৌধুরী

আনন্দে-উৎসবে দিন কাটলো সিলেট জেলা প্রেসক্লাবের সদস্য তাদের পরিবারগুলোর। শনিবার জেলা প্রেসক্লাবের ‘পরিবার উৎসবে’ মুখর হয়ে উঠে শহরতলির আলী বাহার চা বাগানের বাংলো। দিনভর নানা আয়োজনে আনন্দ উদযাপন করেন সাংবাদিক পরিবারের সদস্যরা।

সাংবাদিক পরিবারগুলোর নারী সদস্যরা অংশ নেন বালিশ বদল, হাঁড়িভাঙা খেলায়। আর শিশুরা অংশ নেয় দৌড়, চকলেট দৌড়, চামচ দৌড়, মোরগ লড়াইয়ে।

সিলেট জেলা প্রেসক্লাবের আয়োজনে শনিবার সকাল থেকে দিনব্যাপী নানা আয়োজনে পালিত হয় পরিবার উৎসব। মিলনমেলায় ছিলো নানা ধরণের খেলাধূলা, আপ্যায়ন, র‌্যাফেল ড্র ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান। নগরীর উপকন্ঠে আলী বাহার চা বাগানের বাংলোয় দিনব্যাপী আয়োজনে দুপুরের দিকে উপস্থিত হন সিলেট সিটি করপোরেশনের মেয়র আরিফুল হক চৌধুরী।

এসময় অনুষ্ঠান উপস্থিত সাংবাদিক ও তাদের পরিবারের সদস্যদের উদ্দেশ্যে মেয়র আরিফুল হক চৌধুরী বলেন, সাংবাদিকতা পেশাটি অন্য পেশাগুলো থেকে সম্পূর্ণ ব্যতিক্রম। সাংবাদিকদের দিনের বেশিরভাগ সময়ই ব্যস্ত থাকতে হয় কর্মক্ষেত্রে। সেসব কারণে তারা পরিবারের সদস্যদের খুব একটা সময় দিতে পারেন না। চিত্তবিনোদনের সুযোগও তাদের খুব একটা হয়ে ওঠেনা। পরিবারের উৎসবের মতো আয়োজন সাংবাদিকদের সেই সুযোগ করে দেয়।

সিলেট জেলা প্রেসক্লাবের পরিবার উৎসবে উপস্থিত সাংবাদিকরা

সিলেট জেলা প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক শাহ দিদার আলম নবেলের পরিচালনায় অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন সংগঠনের সভাপতি আজিজ আহমদ সেলিম।

বক্তব্য রাখেন সিনিয়র সাংবাদিক আল আজাদ, লিয়াকত শাহ ফরিদী, তাপস দাস পুরকায়স্থ। শুভেচ্ছা বক্তব্য রাখেন উৎসব উদযাপন কমিটির আহ্বায়ক ও জেলা প্রেসক্লাবের সহসভাপতি মঈন উদ্দিন এবং স্বাগত বক্তব্য রাখেন জেলা প্রেসক্লাবের কোষাধ্যক্ষ মনিরুজ্জামান মনির।

এর আগে সকালে সিলেট কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার থেকে বাসবহর যাত্রা শুরু করে উৎসব স্থলের দিকে। একে একে বাসগুলো পৌঁছে নির্ধারিত গন্তব্যে। রেজিস্ট্রেশনের পর নাস্তা পর্ব শেষে শুরু হয় সাংবাদিক পরিবারের সদস্য শিশু-কিশোরদের খেলাধুলার পর্ব।

এরপর দুপুরের খাবার শেষে আবার চলে সাংবাদিক পরিবারের নারী সদস্যদের নিয়ে বালিশ বদল ও হাঁড়ি ভাঙা খেলা। এরপর শুরু হয় বর্ণাঢ্য সাংস্কৃতিক সন্ধ্যা। যাতে সিলেটের জনপ্রিয় সঙ্গীত শিল্পীরা অংশ নেন। পাশাপাশি জেলা প্রেসক্লাবের সদস্যরাও অংশ নেন। সবার শেষে অনুষ্ঠিত হয় র‌্যাফেল ড্র।

এদিকে অসুস্থতার কারণে জেলা প্রেসক্লাবের পরিবার উৎসবে যোগ দিতে পারেননি সিলেট সিটি করপোরেশনের সাবেক মেয়র ও সিলেট মহানগর আওয়ামী লীগের সদস্য বদর উদ্দিন আহমদ কামরান। তিনি টেলিফোনের মাধ্যমে জেলা প্রেসক্লাবের সকল সাংবাদিকদের শুভেচ্ছা জানান। সিলেট জেলা প্রেসক্লাবের সিনিয়র সদস্য ও দৈনিক শ্যামল সিলেটের প্রধান আলোকচিত্রী ইকবাল মনসুরও অসুস্থাতার মাঝেও এসে যোগ দেন পরিবার উৎসবে।
দিনব্যাপী পরিবার উৎসবে সিলেট জেলা প্রেসক্লাবের সদস্যরা স্বপরিবারের উপস্থিত ছিলেন।