আজ জাতির পিতার ৯৮তম জন্মদিন

‘আমি কিংবদন্তীর কথা বলছি/আমি আমার পূর্ব পুরুষের কথা বলছি/তাঁর করতলে পলিমাটির সৌরভ ছিল/তাঁর পিঠে রক্ত জবার মতো ক্ষত ছিল/তিনি অতিক্রান্ত পাহাড়ের কথা বলতেন/অরণ্য এবং শ্বাপদের কথা বলতেন/পতিত জমি আবাদের কথা বলতেন/ তিনি কবি এবং কবিতার কথা বলতেন।’

বি আবু জাফর ওবায়দুল্লাহ তার ‘আমি কিংবদন্তীর কথা বলছি‘ কবিতায় যাঁর কথা বলে গেছেন, আজ (১৭ মার্চ) সেই কিংবদন্তি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৯৮তম জন্মদিন। জাতীয় শিশু-কিশোর দিবস। জাতি যথাযোগ্য মর্যাদা ও উৎসাহ-উদ্দীপনার মধ্য দিয়ে দিবসটি উদযাপন করবে। দিনটিকে সরকারি ছুটি ঘোষণা করা হয়েছে। রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ এবং প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দিবসটি উপলক্ষে পৃথক বাণী দিয়েছেন।

জন্মদিন উপলক্ষে বঙ্গবন্ধুর জন্মস্থান টুঙ্গিপাড়াতেও প্রতিবারের মতো কর্মসূচি গ্রহণ করা হয়েছে। রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ এবং প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা শনিবার সকাল দশটায় টুঙ্গিপাড়ায় বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সমাধিতে শ্রদ্ধার্ঘ্য অর্পণসহ দোয়া ও মিলাদ মাহফিলে অংশ নেবেন।

প্রধানমন্ত্রী সকাল সাড়ে ১০ টা থেকে দুপুর সোয়া ১২ টা পর্যন্ত বঙ্গবন্ধুর সমাধি সৌধ কমপ্লেক্সে শেখ রাসেল স্মারক ডাকটিকিট অবমুক্তকরণ, ‘আমাদের ছোট রাসেল সোনা’ শিশুগ্রন্থের মোড়ক উন্মোচন, সেলাই মেশিন বিতরণ, ‘উঠব জেগে, ছুটব বেগে’ শীর্ষক ভিডিও প্রদর্শন, শিশু সমাবেশ, আলোচনা সভা ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে যোগদান, বইমেলা উদ্বোধন ও শিশুদের আঁকা ‘আমার ভাবনায় ৭ মার্চ’ শীর্ষক চিত্র প্রদর্শনী পরিদর্শন করবেন।
বিশ্বের অন্যান্য দেশে বাংলাদেশি দূতাবাসগুলোতে দিবসটি যথাযথ মর্যাদায় উদযাপনের জন্য প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে।

শনিবার সারাদিন ধরেই বঙ্গবন্ধুর ৭ মার্চের ভাষণের রেকর্ড বাজানো হবে। বঙ্গবন্ধু ও তাঁর পরিবারের সদস্যদের রুহের মাগফেরাত কামনা করে সারাদেশে বিভিন্ন মসজিদে মিলাদ ও দোয়া মাহফিল এবং অন্যান্য উপাসনালয়ে প্রার্থনা সভা অনুষ্ঠিত হবে।

যথাযোগ্য মর্যাদায় দিবসটি পালনের লক্ষ্যে আওয়ামী লীগ এবং এর সহযোগী সংগঠনগুলো বিস্তারিত কর্মসূচি গ্রহণ করেছে।

স্বাধীন বাংলাদেশের মহান স্থপতি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ১৯২০ সালের ১৭ মার্চ তদানীন্তন ভারত উপমহাদেশের বঙ্গ প্রদেশের অন্তর্ভুক্ত ফরিদপুর জেলার গোপালগঞ্জ মহকুমার টুঙ্গিপাড়া গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন। তাঁর বাবার নাম শেখ লুৎফর রহমান এবং মাতার নাম সায়েরা খাতুন। পরিবারের চার মেয়ে এবং দুই ছেলের সংসারে শেখ মুজিবুর রহমান ছিলেন তাঁদের তৃতীয় সন্তান। সেদিনের টুঙ্গীপাড়ার অজপাড়া গ্রামে জন্মগ্রহণ করা ‘খোকা’ নামের সেই শিশুটি পরবর্তীতে হয়ে উঠেন নির্যাতিত-নিপীড়িত বাঙালি জাতির মুক্তির দিশারী। গভীর রাজনৈতিক প্রজ্ঞা, আত্মত্যাগ ও জনগণের প্রতি অসাধারণ মমত্ববোধের কারণেই পরিণত বয়সে হয়ে ওঠেন বাঙালি জাতির অবিসংবাদিত নেতা বঙ্গবন্ধু।

কিশোর বয়সেই তিনি সক্রিয় রাজনীতিতে জড়িয়ে পড়েন। গোপালগঞ্জের মিশন স্কুলে অষ্টম শ্রেণিতে অধ্যায়নকালে তৎকালীন ব্রিটিশবিরোধী আন্দোলনে যোগদানের কারণে শেখ মুজিবুর রহমান প্রথমবারের মতো গ্রেফতার হয়ে কারাবরণ করেন। এরপর থেকে শুরু হয় বঙ্গবন্ধুর সংগ্রামী জীবনের অভিযাত্রা। বঙ্গবন্ধু তাঁর সহকর্মীদের নিয়ে ১৯৪৮ সালে ছাত্রলীগ এবং পরবর্তীতে ১৯৪৯ সালে আওয়ামী লীগ গঠন করেন। ১৯৪৭ সালে দেশ বিভাগ ও স্বাধীনতা আন্দোলন, ১৯৫২ সালের ভাষা আন্দোলন, ১৯৫৪ সালের যুক্তফ্রন্ট নির্বাচন, ১৯৬২ সালে শিক্ষা আন্দোলন, ১৯৬৬ সালে ছয় দফা আন্দোলন, ১৯৬৯-এর গণঅভ্যুত্থান পেরিয়ে ১৯৭০ সালের ঐতিহাসিক নির্বাচনে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বাঙালি জাতির অবিসংবাদিত নেতায় পরিণত হন। বাংলাদেশের মুক্তি সংগ্রামের প্রতিটি অধ্যায়ে বঙ্গবন্ধুর নাম চির ভাস্বর হয়ে আছে।

১৯৭১ সালের ২৬ মার্চের প্রথম প্রহরে পাকিস্তানি হানাদার বাহিনীর হাতে গ্রেফতার হওয়ার পূর্বে তিনি আনুষ্ঠানিকভাবে বাংলাদেশের স্বাধীনতা ঘোষণা করেন। এর আগে ৭ মার্চ তৎকালীন রেসকোর্স মাঠে এক ঐতিহাসিক ভাষণের মধ্যে দিয়ে স্বাধীনতার ডাক দেন বাঙালি জাতির প্রিয় নেতা বঙ্গবন্ধু। বঙ্গবন্ধু নির্দেশনায় দীর্ঘ ৯ মাস সংগ্রামের পর বাংলাদেশ স্বাধীন হয়। পাকিস্তানের কারাগার থেকে মুক্তি পেয়ে দেশে ফিরে হাল ধরেন তিনি। শুরু করেন অর্থনৈতিক মুক্তির জন্য নতুন সংগ্রাম। যুদ্ধ বিধ্বস্ত বাংলাদেশ তাঁর নেতৃত্বে যখন মাথা তুলে দাঁড়াতে শুরু করলো, ঠিক সেই সময় দেশের ইতিহাসে নেমে এলো এক অমানিশার অন্ধকার। ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্টের কালোরাত্রিতে বিশ্বাসঘাতকদের তপ্ত বুলেটে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান সপরিবারে নিহত হন।

‘যতকাল রবে পদ্মা যমুনা গৌরী মেঘনা বহমান/ততকাল রবে কীর্তি তোমার শেখ মুজিবুর রহমান/দিকে দিকে আজ অশ্রুমালা রক্তগঙ্গা বহমান/তবু নাই ভয় হবে হবে জয়, জয় মুজিবুর রহমান।’ দুই বাংলার প্রখ্যাত কবি অন্নদা শংকর রায় মুক্তিযুদ্ধের শেষ পর্যায়ে (৬ ডিসেম্বর, ১৯৭১) বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে চার লাইনের এই ছড়াটি লিখেছিলেন। বঙ্গবন্ধু ঘাতকদের গুলিতে নিহত হলেও রয়ে গেছে তার কীর্তি। তাঁর দেখানো পথ ধরে দেশকে আজ সামনের দিকে এগিয়ে নিয়ে যাচ্ছেন তাঁরই কন্যা বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। পিতার স্বপ্ন বাস্তবায়নে নিরন্তর পরিশ্রম করে যাচ্ছেন তিনি। তারই প্রচেষ্টায় বাংলাদেশ আজ বিশ্বের কাছে রোল মডেল। শিগগিরই জাতি উন্নয়নশীল দেশে উন্নীত হওয়ার সুখবর পেতে যাচ্ছে।